বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

দুই যুগ ধরে বৈষম্যের শিকার কর্মচারীরা ক্ষুব্ধ, যে কোনো সময় আন্দোলনের ঘোষণা

ফারুক আহম্মেদ সুজনঃ ২৩ বছরেও দাবি আদায় হয়নি সচিবালয়ের বাইরে বিভিন্ন দপ্তরে কর্মরত প্রধান সহকারী ও উচ্চমান সহকারী পদাধিকারীদের। অথচ একই পদে সচিবালয়ে কর্মরতদের পদ পরিবর্তন করে তাদের ‘প্রশাসনিক কর্মকর্তা’ করা হয়েছে এবং ১০-গ্রেডে বেতনভাতা দেওয়া হচ্ছে। বৈষম্যের শিকার যারা, তারা এর বিলোপ চান। প্রায় দুই যুগ ধরে চলা এ বৈষম্য বিলোপের দাবিতে বঞ্চিতরা আবার সক্রিয় হয়েছেন। সচিবালয়ে কর্মরতদের মতো তাদেরও ‘উচ্চমান সহকারী’, ‘প্রধান সহকারী’, ‘সহকারী’ ইত্যাদি পদবি পরিবর্তন করে ‘প্রশাসনিক কর্মকর্তা’ করার দাবিতে দেনদরবার চলছে বঞ্চিতদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদ’-এর ব্যানারে।
তৃতীয় শ্রেণির এসব কর্মচারীর মধ্যে বঞ্চিতদের পক্ষে গত ১৭ মে জনপ্রশাসনমন্ত্রী এবং একই মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন সিনিয়র সচিবকে ডিও লেটার দিয়েছিলেন বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম রওশন এরশাদ। তাতেও কোনো কাজ হয়নি। গত ৭ জুলাই প্রধানমন্ত্রী এবং তার কার্যালয়ের মুখ্য সচিবকে স্মারকলিপি দেন বঞ্চিতরা।
এদিকে সচিবালয়ের বাইরে কর্মরত প্রধান সহকারী ও উচ্চমান সহকারীদের বঞ্চনার বিষয়টি নিয়ে গত ৩ সেপ্টেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুয়াজ্জেম হোসেনের সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। যদিও সেই সভার সিদ্ধান্ত সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি। অন্যদিকে গত শনিবার বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদের সভাপতি কেএম বদিউজ্জামানের সভাপতিত্বে বঞ্চিতদের একটি সাধারণসভা অনুষ্ঠিত হয়। ডাক ভবনে বিভিন্ন দপ্তর-অধিদপ্তরের প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী, সহকারীসহ সমপদের
কর্মচারীরা এতে উপস্থিত ছিলেন। সভায় সচিবালয়ে কর্মরতদের মতো তাদেরও প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে উন্নীতকরণের দাবি জানান নেতার।
পরিষদের নেতারা জানান, স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে ১৯৭৭ সালের ঘোষিত জাতীয় বেতন স্কেলে সব সরকারি প্রতিষ্ঠানের উচ্চমান সহকারী পদ জাতীয় বেতন স্কেলের একই গ্রেডে (১৪) নির্ধারিত ছিল। শুধু বাংলাদেশ সচিবালয়ে কর্মরত প্রধান সহকারী ও উচ্চমান সহকারী পদধারীদের দায়িত্ব, সুবিধা, বেতন স্কেল, কর্মপরিধি ও পদমর্যাদা অপরিবর্তিত রেখে প্রশাসনিক কর্মকর্তা করা হয় ১৯৯৫ সালে। এর পর ১৯৯৭ সালে তাদের গ্রেড ১১-এ উন্নীত করা হয়। এর দুবছর পর ১৯৯৯ সালে তাদের গ্রেড ১০-এ উন্নীত করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি), বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট এবং বাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের উচ্চমান সহকারী পদবিধারীদেরও একইভাবে প্রশাসনিক কর্মকর্তা করাসহ গ্রেড ১০-এ উন্নীত করা হয়। অথচ সচিবালয়ের বাইরে বিভিন্ন দপ্তরে কর্মরত উচ্চমান সহকারী ও প্রধান সহকারীদের পদের কোনো পরিবর্তন হয়নি। তাদের বেতন স্কেলও সেই গ্রেড ১৪-তেই রয়ে গেছে। ফলে একই সঙ্গে চাকরিতে প্রবেশের পর সচিবালয়ে কর্মরত থাকার সুবাদে কেউ প্রশাসনিক কর্মকর্তা হয়ে ১০ গ্রেডে বেতনভাতা পাচ্ছেন আর সচিবালয়ের বাইরে কর্মরত প্রায় সাড়ে ৫ হাজার কর্মচারী আগের পদে ও গ্রেডেই বহাল আছেন। সঙ্গত কারণেই এ নিয়ে ক্ষুব্ধ বঞ্চিতরা। তারা কয়েক বছর ধরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে তাদের বঞ্চনার বিষয়গুলো উল্লেখপূর্বক স্মারকলিপি দিয়ে আসছেন। কিন্তু এ পর্যন্ত এর বিহিতে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।
বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদের মহাসচিব আবু নাসির খান বলেন, ১৯৯৫ সালে সরকার সচিবালয়ে কর্মরত উচ্চমান সহকারী ও প্রধান সহকারীদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে উন্নীত করে। কিন্তু সচিবালয় ও হাইকোর্টের বাইরে অন্যান্য দপ্তরের একই পদাধিকারীদের এ উন্নীতকরণ থেকে বঞ্চিত করা হয়। খোদ তৎকালীন সরকার বৈষম্য বিলোপের পরিবর্তে এ বৈষম্যবাদের সৃষ্টি করে। এটি সংবিধানের ২৭ ও ২৯ অনুচ্ছেদের চরম লঙ্ঘন। বিআরটিএ’র পক্ষে থেকে পরিষদের আরেক নেতা আশিকুর রহমান (আশিক) বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার। আমাদের বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই বৈষম্যমূলক বিষয়টির অবসানে ইতিবাচক উদ্যোগ নেবেন। তিনি চাইলেই সারাদেশের হাজার হাজার উচ্চমান সহকারী ও প্রধান সহকারী পদে কর্মরতরা বৈষম্যমূলক এ অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বাংলার খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com