অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :
Logo পদোন্নতি পেলো বিআরটিএর উপপরিচালক পদে ৯ চৌকস কর্মকর্তা Logo তিস্তা ও ধরলার পানি কমতে শুরু করলেও ভোগান্তি কমেনি। Logo বগুড়ায় নদী থেকে ২টি কাটা কবজি উদ্ধার করেছেন পুলিশ Logo বাউফলে শশুরের হাতে নির্যাতনের শিকার জামাই! Logo তিস্তায় পানি বৃদ্ধির ফলে দেখা দিয়েছে বন্যা, মানবেতর জীবনযাপন করছেন হাজারো মানুষ। Logo বিআরটিএ-সিএনএস এর সমন্বয়কারী মতিউরের দুর্নীতি এখন গোয়েন্দা নজরে (পর্ব-০১) Logo সড়কে সচিব পদে আরও এক বছর থাকছেন আমিন উল্লাহ নুরী Logo বাউফলে বৃদ্ধ চাচাকে নির্মম নির্যাতন, কথিত মাওলানা জাকিরের বিচার চায় স্থানীয়রা! Logo পাটগ্রামে আদর্শ পাট চাষী প্রশিক্ষণ কর্মশালা Logo রূপগঞ্জে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে তরুণ নিহত, আহত ১৩।

বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রাম ও আজকের বাংলাদেশ

( ড. আতিউর রহমান ) : ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ যে ঐতিহাসিক মহাকাব্যিক ভাষণটি দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার মূল কথাটি ছিল মুক্তি। এ মুক্তি শব্দটির ব্যঞ্জনা ছিল বহুমাত্রিক। রাজনৈতিক স্বাধীনতা ছাড়াও সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটেছিল এই শব্দে। আজ আমরা বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক দর্শন বলতে গণমানুষের জীবনমানের উন্নতিকেই বেশি করে বুঝে থাকি।

তিনি যে রাষ্ট্রচিন্তা করতেন তার মূলে ছিল সাধারণ মানুষ ও তাদের কল্যাণ। তার মতো করে তিনি তাই বৈষম্যহীন সমাজ গড়ার কথা বহাত্তরের সংবিধানের মূলনীতিতে যুক্ত করেছিলেন। তার ‘সমাজতন্ত্র’ অন্য দেশ থেকে ধার করা নয়। এ সমাজতন্ত্রে কৃষক, শ্রমিক ও জ্ঞানী মানুষের প্রাধান্য লক্ষ করার মতো। বঙ্গবন্ধু আগাগোড়াই ছিলেন গণতান্ত্রিক। তাই তার দেয়া সংবিধানেও গণতন্ত্র গুরুত্ব পেয়েছে। জীবনের শেষ দিকে এসে তিনি দ্বিতীয় বিপ্লবের রূপরেখায় বৈষম্য কমিয়ে আনার কথা বললেও, সমবায় গড়ার রূপরেখা দিলেও জমির মালিকানা কেড়ে নিতে চাননি। অর্থনীতিতে রাষ্ট্রীয় মালিকানার গুরুত্ব বেশি দিলেও ব্যক্তি মালিকানায় বিনিয়োগের লাগাম শিথিল করতে শুরু করেছিলেন।

তিনি রাজনৈতিক জীবনের বড় অংশই গ্রামে-গঞ্জে ঘুরে ঘুরে কৃষকের দুঃখ-কষ্ট স্বচোখে দেখতেন। শ্রমিকের দুঃখও তিনি জানার চেষ্টা করতেন। কী করে এ শোষিত মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা যায় সে বিষয়ে তিনি নিরন্তর ভাবতেন। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারে পূর্ব বাংলার মানুষের তেমন উপস্থিতি ছিল না বলে বঙ্গবন্ধু বরাবরই বাঙালির জন্য ন্যায়বিচারের কথা বলতেন। তিনি পাকিস্তানি এলিটদের প্রধান টার্গেটে পরিণত হন। তাই সুযোগ পেলেই তাকে জেলে ভরা হতো। জেলে বসেও লিখতেন বাঙালির মুক্তি নিয়ে ভাবতেন। তাদের জন্য স্বায়ত্তশাসনের কোনো বিকল্প নেই বলে স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর পরপরই তিনি ঐতিহাসিক ছয়-দফা ঘোষণা করেন। এ ছয়-দফা মূলত বাঙালির মুক্তির সনদ। একপর্যায়ে তথাকথিত আগরতলা মামলার নাম করে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয় তার নামে। প্রধান আসামি করা হয়। উদ্দেশ্য ফাঁসিতে ঝুলিয়ে শেষ করে দেয়া। জনগণ অভ্যুত্থানে অংশ নিয়ে তাকে মুক্ত করেন। এরপর আইয়ুব সকারের পতন হয়। আসে আরেক সামরিক শাসক ইয়াহিয়া সরকার। নয়া সরকার জাতীয় নির্বাচন দিলে বঙ্গবন্ধু ছয়-দফার পক্ষে গণরায় নেয়ার অভিপ্রায়ে এ নির্বাচনে অংশ নেন। সারা দেশে নির্বাচনী প্রচারে বাঙালির বঞ্চনার কথা তুলে ধরেন। আগামী দিনের সংবিধানে যে ছয়-দফার প্রতিফলন ঘটানো হবে তাই পরিষ্কার করেন ভোটারদের কাছে। তাই বিপুল ভোটে বিজয়ী হয় তার দল। প্রস্তুতিও নিতে থাকেন ছয়-দফাভিত্তিক সংবিধান প্রণয়নের। পাকিস্তানি শাসকদের নানা অত্যাচার ষড়যন্ত্র পেরিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিজয় হয় বাঙালির। পাকিস্তানে বন্দি থাকা জাতির পিতা মহানায়কের বেশে ফিরে আসেন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশে।

দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েই বঙ্গবন্ধু শুরু করে দেন স্বদেশের পুনর্বাসন। পরিস্থিতির কারণেই শিল্প কারখানা রাষ্ট্রীয় মালিকানায় পরিচালনা করতে বাধ্য হন। তবে এসব কারখানার ব্যবস্থাপনা বোর্ডে ৪০ শতাংশ শ্রমিকের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেন। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের বিলগ্নিকরণের প্রক্রিয়া শুরু করেন। ভূমি মালিকানার সর্বোচ্চ সীমা নির্ধারণ করে দেন। এ কথাও মনে রাখা চাই অত্যন্ত বৈরী এক পরিবেশে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে তিনি পুনর্বাসন ও পুনর্নির্মাণে হাত দিয়েছিলেন। অবকাঠামো ছিল খুবই নাজুক। বেশিরভাগ সড়ক, বন্দর, সেতু বিধ্বস্ত। শিল্প-কারখানাও প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত। উপর্যুপরি বন্যায় কাক্সিক্ষত ফসল উৎপাদন করা যায়নি। বহিঃঅর্থনীতিও খুব প্রতিকূল ছিল। বাহাত্তরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সোনা থেকে ডলারে পরিবর্তন করার প্রথা তুলে নেয়। ফলে ৩ ডলারের এক ব্যারেল তেলের দাম হয়ে যায় ১১ ডলার। প্রতি টন গমের দাম ছিল আগে ৮০ ডলার। হয়ে যায় ২৪০ ডলার। সারের দাম ছিল প্রতি টন ৮০ ডলার। তা বেড়ে গিয়ে দাঁড়ায় ২০০ ডলার। সারা বিশ্বেই মূল্যস্ফীতি হয়ে যায় আকাশচুম্বী। বিদেশি সহায়তা পেতেও বেগ পেতে হচ্ছিল। বঙ্গবন্ধুর শক্তিশালী নেতৃত্বে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে পুরনো ঋণের দায়-দেনার সমঝোতা হলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতি বৈরীই থেকে যায়। তাই অনেক কষ্টে তাকে খাদ্য সংকট মোকাবেলা করতে হয়েছে। ১৯৭৪ সালের মূল্যস্ফীতি ৬০ শতাংশকে ১৯৭৫ সালে ৩০-৩৫ শতাংশে নামিয়ে আনতে পেরেছিলেন। মাত্র তিন বছরেই তিনি বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ৯৩ ডলার থেকে টেনে ২৭১ ডলারে উন্নীত করেছিলেন। ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে যে ভাষণটি দিয়েছিলেন তাতেই প্রতিফলিত হয়েছিল তার গণমুখী আধুনিক অর্থনৈতিক দর্শন। আত্মনির্ভরশীল অর্থনীতি গড়ার পাশাপাশি তিনি একটি ন্যায্য আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থারও প্রবক্তা ছিলেন। শোষিতের পক্ষেই ছিলেন বরাবর। তাই কায়েমি স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্রে তাকে প্রাণ দিতে হয় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট।

অনেক সংগ্রাম শেষে বাংলাদেশ ফিরে এসেছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পথে। তার কন্যার হাত ধরে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছিল। হঠাৎ মহামারী এসে সেই গতি খানিকটা থমকে দিলেও অন্য অনেক দেশের চেয়ে ভালোই করছে বাংলাদেশের অর্থনীতি। বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু কন্যার হাত ধরে। এক যুগসন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে লড়াকু বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে সোনার বাংলার সন্ধানে। কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কার মধ্যেই অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। যতটা জাঁকজমকপূর্ণভাবে এ বছর মুজিববর্ষ পালন করার কথা ছিল মহামারীর কারণে তা সম্ভব হয়নি। তবে অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে ঠিকই অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ। এখন থেকে প্রায় ৫০ বছর আগে বাঙালির ইতিহাসের এক যুগসন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে তিনি অন্তরের গহিনতম তল থেকে উচ্চারণ করেছিলেন ‘দাবায়ে রাখতে পারবা না’। ঔপনিবেশিক ও নয়া-ঔপনিবেশিক শাসনে নিপীড়িত-নির্যাতিত বাঙালি জাতির পিতা সেদিন এমন সাহসী উচ্চারণ করতে পেরেছিলেন এ ভূখণ্ডের মানুষের বৃহত্তর কল্যাণের জন্য দীর্ঘদিনের আত্মত্যাগের ঐতিহ্যের বিষয়টি মাথায় রেখে। ‘কারাগারের রোজনামচায়’ তাই তিনি লিখেছেন, ‘এই দেশের মানুষ তার ন্যায্য অধিকার আদায় করার জন্য যখন জীবন দিতে শিখেছে তখন জয় হবেই, কেবলমাত্র সময় সাপেক্ষ।’ (শেখ মুজিবুর রহমান, ‘কারাগারের রোজনামচা’, বাংলা একাডেমি, ২০১৮, সপ্তম মুদ্রণ, পৃ. ৭৩)। বাস্তবেও তাই হয়েছে।

সামষ্টিক উন্নয়নে যে অগ্রগতি আমরা বিগত যুগ ধরে অর্জন করছি তা কম নয়। মহামারী সত্ত্বেও তাই বাংলাদেশের অর্থনীতি থমকে যায়নি। বিশ্ব অর্থনীতি যখন ৫ শতাংশের বেশি হারে সংকুচিত হওয়ার পথে তখনও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৬ শতাংশের বেশি হারে বাড়বে বলে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থাগুলোই বলছে। বাংলাদেশের প্রক্ষেপণ অবশ্যি এর চেয়ে অনেকটাই বেশি। এমন সংকটকালেও এই যে অর্থনৈতিক সক্ষমতার প্রমাণ রাখছে বাংলাদেশ এর উৎস খুঁজতে হবে তার নেতৃত্বের ও মানুষের লড়াকু মনের মাঝে। বাংলাদেশ এ মুহূর্তে করোনা মহামারী ও জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেই সামনের দিকে এগোচ্ছে। এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, গত পাঁচ দশকে আমাদের উন্নয়ন অভিযাত্রা নানা বিচারেই বিস্ময়কর।

বিধ্বস্ত বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর ভঙ্গিটি সত্যি অনন্য। কী প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করেই না বাংলাদেশকে আজকের এ অবস্থায় আসতে হয়েছে। উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ছিল মাত্র আট বিলিয়ন ডলারের মতো। কী করে সেই অর্থনীতি ২০১৯ সালে ৩০২ বিলিয়নে উন্নিত হল- তা আসলেই অনুভবের বিষয়। অর্থাৎ এই পাঁচ দশকে বাংলাদেশের অর্থনীতি বেড়েছে ৩৮ গুণের মতো। এই ২০০৯ সালেও আমাদের মোট জিডিপির আকার ছিল ১০২.৫ বিলিয়ন ডলার। মাত্র এক দশকেই তা বেড়েছে তিন গুণের মতো। অথচ এর আগের চল্লিশ বছরে প্রতি দশকে বাংলাদেশের জিডিপির আকার বেড়েছে মাত্র ১.৭৬ গুণ। পঁচাত্তর পরবর্তী দশকে প্রবৃদ্ধির গড় হার ছিল ৪ শতাংশ। তার পরের দশকে তা ছিল ৫.২ শতাংশ অথচ ২০০৭-০৮ থেকে ২০১৮-১৯ সময়কালে গড়ে ৭ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।

গত এক দশকে কৃষির পাশাপাশি শিল্প ও সার্ভিস খাতের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। রফতানি বেড়েছে কয়েকগুণ। আর রেমিট্যান্স আয় তো বেড়েছে অবিশ্বাস্য হারে। এখন মাসে প্রায় দুই বিলিয়ন ডলার করে প্রবাস আয় দেশে আসছে। ১৯৭৫-৭৬ সালে রেমিট্যান্সের পরিমাণ ছিল ১৬.৩৫ মিলিয়ন ডলার। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে তা বেড়ে হয়েছে ১৬ বিলিয়ন ডলার (হাজার গুণ বেশি)। এ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে প্রবাস আয় বেড়েছে ৪১ শতাংশ। অর্থনীতির নিয়মানুযায়ীই জিডিপিতে কৃষির অবদান কমছে। আর বাড়ছে শিল্পের অবদান। তাও আবার কর্মসংস্থানী শিল্পের বিকাশ ঘটে চলেছে। ফলে বিপুলসংখ্যক নারীসহ গ্রামীণ মানুষের কর্মসংস্থান ঘটছে শিল্পে। খুদে ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য প্রণোদনা কর্মসূচিগুলো ঠিকঠাক মতো বাস্তবায়ন করা গেলে আমাদের অর্থনীতির গতিধারা ইতিবাচকই থাকবে বলে আশা করা যায়। সে জন্য অবশ্যি ডিজিটাল মনিটরিং এবং বিভিন্ন অর্থনৈতিক সংগঠনগুলোর মাঝে নীতি সমন্বয় ও সহজিকরণ অব্যাহত রাখতে হবে। গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে চলমান আমাদের অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই উন্নয়নের অভিযাত্রার সুফল আরও ভালোভাবে ধরা পড়বে কিছু দিন পর। আজকাল গ্রাম আর শহরের জীবনযাত্রা ও সুযোগ-সুবিধার তফাত খুঁজে পাওয়াই মুশকিল। বিশেষ করে আমাদের অর্থনীতির মূল রক্ষাকবচ কৃষির উন্নতি সত্যি অসাধারণ। আর কৃষি ভালো করছে বলে ভোগ বাড়ছে। বাড়ছে মানুষের আয়-রোজগার। তাই চাহিদাও বাড়ছে। ফলে শিল্পেরও প্রসার ঘটেছে। গ্রামীণ অর্থনীতির এই চাঙ্গা ভাবের কারণে এ করোনাকালেও আমাদের প্রবৃদ্ধির হার পৃথিবীর ষষ্ঠতম সেরা বলে স্বীকৃতি পেয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ায় প্রবৃদ্ধির দৌড়ে আমরাই প্রথম।

জাতির পিতা যে প্রাণবন্ত আর সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের স্বপ্ন নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তার কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি গড়ে তুলতে পেরেছেন শত প্রতিকূলতা পেরিয়ে সফল হওয়ার সংস্কৃতি। তাই আমরা জাতীয় উন্নয়নের স্বপ্ন পূরণের লড়াইয়ে সাহস পাচ্ছি। আমরা যে পারি তার প্রমাণ তো পদ্মা সেতুর সর্বশেষ স্প্যানটির দৃশ্যমান করার মাধ্যমেই দেখিয়েছি। এমনই বাস্তবতায় আমাদের আশা আমাদের সরকার, ব্যক্তি খাত ও অ-সরকারি সংগঠনগুলো সমন্বিত উপায়ে মানুষের ওপর বিনিয়োগ অব্যাহত রাখবে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষার ওপর তারা বিনিয়োগ বাড়িয়ে যাবে। কৃষিতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে যেতে হবে। কার্বন নিঃসরণ কমাতে সবুজ বিদ্যুতের ওপর জোর দিতে হবে। এভাবে এগোলে নিশ্চয় আমরা শত প্রতিকূলতা ডিঙ্গিয়ে স্বপ্নের সোনার বাংলা অর্জনের দিকে এগিয়ে যাব।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

পদোন্নতি পেলো বিআরটিএর উপপরিচালক পদে ৯ চৌকস কর্মকর্তা

বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রাম ও আজকের বাংলাদেশ

আপডেট টাইম : ০৩:২৮:২১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২০

( ড. আতিউর রহমান ) : ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ যে ঐতিহাসিক মহাকাব্যিক ভাষণটি দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার মূল কথাটি ছিল মুক্তি। এ মুক্তি শব্দটির ব্যঞ্জনা ছিল বহুমাত্রিক। রাজনৈতিক স্বাধীনতা ছাড়াও সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটেছিল এই শব্দে। আজ আমরা বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক দর্শন বলতে গণমানুষের জীবনমানের উন্নতিকেই বেশি করে বুঝে থাকি।

তিনি যে রাষ্ট্রচিন্তা করতেন তার মূলে ছিল সাধারণ মানুষ ও তাদের কল্যাণ। তার মতো করে তিনি তাই বৈষম্যহীন সমাজ গড়ার কথা বহাত্তরের সংবিধানের মূলনীতিতে যুক্ত করেছিলেন। তার ‘সমাজতন্ত্র’ অন্য দেশ থেকে ধার করা নয়। এ সমাজতন্ত্রে কৃষক, শ্রমিক ও জ্ঞানী মানুষের প্রাধান্য লক্ষ করার মতো। বঙ্গবন্ধু আগাগোড়াই ছিলেন গণতান্ত্রিক। তাই তার দেয়া সংবিধানেও গণতন্ত্র গুরুত্ব পেয়েছে। জীবনের শেষ দিকে এসে তিনি দ্বিতীয় বিপ্লবের রূপরেখায় বৈষম্য কমিয়ে আনার কথা বললেও, সমবায় গড়ার রূপরেখা দিলেও জমির মালিকানা কেড়ে নিতে চাননি। অর্থনীতিতে রাষ্ট্রীয় মালিকানার গুরুত্ব বেশি দিলেও ব্যক্তি মালিকানায় বিনিয়োগের লাগাম শিথিল করতে শুরু করেছিলেন।

তিনি রাজনৈতিক জীবনের বড় অংশই গ্রামে-গঞ্জে ঘুরে ঘুরে কৃষকের দুঃখ-কষ্ট স্বচোখে দেখতেন। শ্রমিকের দুঃখও তিনি জানার চেষ্টা করতেন। কী করে এ শোষিত মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা যায় সে বিষয়ে তিনি নিরন্তর ভাবতেন। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারে পূর্ব বাংলার মানুষের তেমন উপস্থিতি ছিল না বলে বঙ্গবন্ধু বরাবরই বাঙালির জন্য ন্যায়বিচারের কথা বলতেন। তিনি পাকিস্তানি এলিটদের প্রধান টার্গেটে পরিণত হন। তাই সুযোগ পেলেই তাকে জেলে ভরা হতো। জেলে বসেও লিখতেন বাঙালির মুক্তি নিয়ে ভাবতেন। তাদের জন্য স্বায়ত্তশাসনের কোনো বিকল্প নেই বলে স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর পরপরই তিনি ঐতিহাসিক ছয়-দফা ঘোষণা করেন। এ ছয়-দফা মূলত বাঙালির মুক্তির সনদ। একপর্যায়ে তথাকথিত আগরতলা মামলার নাম করে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয় তার নামে। প্রধান আসামি করা হয়। উদ্দেশ্য ফাঁসিতে ঝুলিয়ে শেষ করে দেয়া। জনগণ অভ্যুত্থানে অংশ নিয়ে তাকে মুক্ত করেন। এরপর আইয়ুব সকারের পতন হয়। আসে আরেক সামরিক শাসক ইয়াহিয়া সরকার। নয়া সরকার জাতীয় নির্বাচন দিলে বঙ্গবন্ধু ছয়-দফার পক্ষে গণরায় নেয়ার অভিপ্রায়ে এ নির্বাচনে অংশ নেন। সারা দেশে নির্বাচনী প্রচারে বাঙালির বঞ্চনার কথা তুলে ধরেন। আগামী দিনের সংবিধানে যে ছয়-দফার প্রতিফলন ঘটানো হবে তাই পরিষ্কার করেন ভোটারদের কাছে। তাই বিপুল ভোটে বিজয়ী হয় তার দল। প্রস্তুতিও নিতে থাকেন ছয়-দফাভিত্তিক সংবিধান প্রণয়নের। পাকিস্তানি শাসকদের নানা অত্যাচার ষড়যন্ত্র পেরিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিজয় হয় বাঙালির। পাকিস্তানে বন্দি থাকা জাতির পিতা মহানায়কের বেশে ফিরে আসেন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশে।

দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েই বঙ্গবন্ধু শুরু করে দেন স্বদেশের পুনর্বাসন। পরিস্থিতির কারণেই শিল্প কারখানা রাষ্ট্রীয় মালিকানায় পরিচালনা করতে বাধ্য হন। তবে এসব কারখানার ব্যবস্থাপনা বোর্ডে ৪০ শতাংশ শ্রমিকের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেন। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের বিলগ্নিকরণের প্রক্রিয়া শুরু করেন। ভূমি মালিকানার সর্বোচ্চ সীমা নির্ধারণ করে দেন। এ কথাও মনে রাখা চাই অত্যন্ত বৈরী এক পরিবেশে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে তিনি পুনর্বাসন ও পুনর্নির্মাণে হাত দিয়েছিলেন। অবকাঠামো ছিল খুবই নাজুক। বেশিরভাগ সড়ক, বন্দর, সেতু বিধ্বস্ত। শিল্প-কারখানাও প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত। উপর্যুপরি বন্যায় কাক্সিক্ষত ফসল উৎপাদন করা যায়নি। বহিঃঅর্থনীতিও খুব প্রতিকূল ছিল। বাহাত্তরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সোনা থেকে ডলারে পরিবর্তন করার প্রথা তুলে নেয়। ফলে ৩ ডলারের এক ব্যারেল তেলের দাম হয়ে যায় ১১ ডলার। প্রতি টন গমের দাম ছিল আগে ৮০ ডলার। হয়ে যায় ২৪০ ডলার। সারের দাম ছিল প্রতি টন ৮০ ডলার। তা বেড়ে গিয়ে দাঁড়ায় ২০০ ডলার। সারা বিশ্বেই মূল্যস্ফীতি হয়ে যায় আকাশচুম্বী। বিদেশি সহায়তা পেতেও বেগ পেতে হচ্ছিল। বঙ্গবন্ধুর শক্তিশালী নেতৃত্বে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে পুরনো ঋণের দায়-দেনার সমঝোতা হলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতি বৈরীই থেকে যায়। তাই অনেক কষ্টে তাকে খাদ্য সংকট মোকাবেলা করতে হয়েছে। ১৯৭৪ সালের মূল্যস্ফীতি ৬০ শতাংশকে ১৯৭৫ সালে ৩০-৩৫ শতাংশে নামিয়ে আনতে পেরেছিলেন। মাত্র তিন বছরেই তিনি বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ৯৩ ডলার থেকে টেনে ২৭১ ডলারে উন্নীত করেছিলেন। ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে যে ভাষণটি দিয়েছিলেন তাতেই প্রতিফলিত হয়েছিল তার গণমুখী আধুনিক অর্থনৈতিক দর্শন। আত্মনির্ভরশীল অর্থনীতি গড়ার পাশাপাশি তিনি একটি ন্যায্য আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থারও প্রবক্তা ছিলেন। শোষিতের পক্ষেই ছিলেন বরাবর। তাই কায়েমি স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্রে তাকে প্রাণ দিতে হয় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট।

অনেক সংগ্রাম শেষে বাংলাদেশ ফিরে এসেছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পথে। তার কন্যার হাত ধরে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছিল। হঠাৎ মহামারী এসে সেই গতি খানিকটা থমকে দিলেও অন্য অনেক দেশের চেয়ে ভালোই করছে বাংলাদেশের অর্থনীতি। বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু কন্যার হাত ধরে। এক যুগসন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে লড়াকু বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে সোনার বাংলার সন্ধানে। কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কার মধ্যেই অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। যতটা জাঁকজমকপূর্ণভাবে এ বছর মুজিববর্ষ পালন করার কথা ছিল মহামারীর কারণে তা সম্ভব হয়নি। তবে অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে ঠিকই অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ। এখন থেকে প্রায় ৫০ বছর আগে বাঙালির ইতিহাসের এক যুগসন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে তিনি অন্তরের গহিনতম তল থেকে উচ্চারণ করেছিলেন ‘দাবায়ে রাখতে পারবা না’। ঔপনিবেশিক ও নয়া-ঔপনিবেশিক শাসনে নিপীড়িত-নির্যাতিত বাঙালি জাতির পিতা সেদিন এমন সাহসী উচ্চারণ করতে পেরেছিলেন এ ভূখণ্ডের মানুষের বৃহত্তর কল্যাণের জন্য দীর্ঘদিনের আত্মত্যাগের ঐতিহ্যের বিষয়টি মাথায় রেখে। ‘কারাগারের রোজনামচায়’ তাই তিনি লিখেছেন, ‘এই দেশের মানুষ তার ন্যায্য অধিকার আদায় করার জন্য যখন জীবন দিতে শিখেছে তখন জয় হবেই, কেবলমাত্র সময় সাপেক্ষ।’ (শেখ মুজিবুর রহমান, ‘কারাগারের রোজনামচা’, বাংলা একাডেমি, ২০১৮, সপ্তম মুদ্রণ, পৃ. ৭৩)। বাস্তবেও তাই হয়েছে।

সামষ্টিক উন্নয়নে যে অগ্রগতি আমরা বিগত যুগ ধরে অর্জন করছি তা কম নয়। মহামারী সত্ত্বেও তাই বাংলাদেশের অর্থনীতি থমকে যায়নি। বিশ্ব অর্থনীতি যখন ৫ শতাংশের বেশি হারে সংকুচিত হওয়ার পথে তখনও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৬ শতাংশের বেশি হারে বাড়বে বলে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থাগুলোই বলছে। বাংলাদেশের প্রক্ষেপণ অবশ্যি এর চেয়ে অনেকটাই বেশি। এমন সংকটকালেও এই যে অর্থনৈতিক সক্ষমতার প্রমাণ রাখছে বাংলাদেশ এর উৎস খুঁজতে হবে তার নেতৃত্বের ও মানুষের লড়াকু মনের মাঝে। বাংলাদেশ এ মুহূর্তে করোনা মহামারী ও জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেই সামনের দিকে এগোচ্ছে। এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, গত পাঁচ দশকে আমাদের উন্নয়ন অভিযাত্রা নানা বিচারেই বিস্ময়কর।

বিধ্বস্ত বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর ভঙ্গিটি সত্যি অনন্য। কী প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করেই না বাংলাদেশকে আজকের এ অবস্থায় আসতে হয়েছে। উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ছিল মাত্র আট বিলিয়ন ডলারের মতো। কী করে সেই অর্থনীতি ২০১৯ সালে ৩০২ বিলিয়নে উন্নিত হল- তা আসলেই অনুভবের বিষয়। অর্থাৎ এই পাঁচ দশকে বাংলাদেশের অর্থনীতি বেড়েছে ৩৮ গুণের মতো। এই ২০০৯ সালেও আমাদের মোট জিডিপির আকার ছিল ১০২.৫ বিলিয়ন ডলার। মাত্র এক দশকেই তা বেড়েছে তিন গুণের মতো। অথচ এর আগের চল্লিশ বছরে প্রতি দশকে বাংলাদেশের জিডিপির আকার বেড়েছে মাত্র ১.৭৬ গুণ। পঁচাত্তর পরবর্তী দশকে প্রবৃদ্ধির গড় হার ছিল ৪ শতাংশ। তার পরের দশকে তা ছিল ৫.২ শতাংশ অথচ ২০০৭-০৮ থেকে ২০১৮-১৯ সময়কালে গড়ে ৭ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।

গত এক দশকে কৃষির পাশাপাশি শিল্প ও সার্ভিস খাতের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। রফতানি বেড়েছে কয়েকগুণ। আর রেমিট্যান্স আয় তো বেড়েছে অবিশ্বাস্য হারে। এখন মাসে প্রায় দুই বিলিয়ন ডলার করে প্রবাস আয় দেশে আসছে। ১৯৭৫-৭৬ সালে রেমিট্যান্সের পরিমাণ ছিল ১৬.৩৫ মিলিয়ন ডলার। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে তা বেড়ে হয়েছে ১৬ বিলিয়ন ডলার (হাজার গুণ বেশি)। এ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে প্রবাস আয় বেড়েছে ৪১ শতাংশ। অর্থনীতির নিয়মানুযায়ীই জিডিপিতে কৃষির অবদান কমছে। আর বাড়ছে শিল্পের অবদান। তাও আবার কর্মসংস্থানী শিল্পের বিকাশ ঘটে চলেছে। ফলে বিপুলসংখ্যক নারীসহ গ্রামীণ মানুষের কর্মসংস্থান ঘটছে শিল্পে। খুদে ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য প্রণোদনা কর্মসূচিগুলো ঠিকঠাক মতো বাস্তবায়ন করা গেলে আমাদের অর্থনীতির গতিধারা ইতিবাচকই থাকবে বলে আশা করা যায়। সে জন্য অবশ্যি ডিজিটাল মনিটরিং এবং বিভিন্ন অর্থনৈতিক সংগঠনগুলোর মাঝে নীতি সমন্বয় ও সহজিকরণ অব্যাহত রাখতে হবে। গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে চলমান আমাদের অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই উন্নয়নের অভিযাত্রার সুফল আরও ভালোভাবে ধরা পড়বে কিছু দিন পর। আজকাল গ্রাম আর শহরের জীবনযাত্রা ও সুযোগ-সুবিধার তফাত খুঁজে পাওয়াই মুশকিল। বিশেষ করে আমাদের অর্থনীতির মূল রক্ষাকবচ কৃষির উন্নতি সত্যি অসাধারণ। আর কৃষি ভালো করছে বলে ভোগ বাড়ছে। বাড়ছে মানুষের আয়-রোজগার। তাই চাহিদাও বাড়ছে। ফলে শিল্পেরও প্রসার ঘটেছে। গ্রামীণ অর্থনীতির এই চাঙ্গা ভাবের কারণে এ করোনাকালেও আমাদের প্রবৃদ্ধির হার পৃথিবীর ষষ্ঠতম সেরা বলে স্বীকৃতি পেয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ায় প্রবৃদ্ধির দৌড়ে আমরাই প্রথম।

জাতির পিতা যে প্রাণবন্ত আর সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের স্বপ্ন নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তার কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি গড়ে তুলতে পেরেছেন শত প্রতিকূলতা পেরিয়ে সফল হওয়ার সংস্কৃতি। তাই আমরা জাতীয় উন্নয়নের স্বপ্ন পূরণের লড়াইয়ে সাহস পাচ্ছি। আমরা যে পারি তার প্রমাণ তো পদ্মা সেতুর সর্বশেষ স্প্যানটির দৃশ্যমান করার মাধ্যমেই দেখিয়েছি। এমনই বাস্তবতায় আমাদের আশা আমাদের সরকার, ব্যক্তি খাত ও অ-সরকারি সংগঠনগুলো সমন্বিত উপায়ে মানুষের ওপর বিনিয়োগ অব্যাহত রাখবে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষার ওপর তারা বিনিয়োগ বাড়িয়ে যাবে। কৃষিতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে যেতে হবে। কার্বন নিঃসরণ কমাতে সবুজ বিদ্যুতের ওপর জোর দিতে হবে। এভাবে এগোলে নিশ্চয় আমরা শত প্রতিকূলতা ডিঙ্গিয়ে স্বপ্নের সোনার বাংলা অর্জনের দিকে এগিয়ে যাব।