শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৬:৩৭ পূর্বাহ্ন

অস্বস্তিতে তৃণমূল আওয়ামী লীগ

স্টাফ রিপোর্টার: বড় ধরনোর কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি দিয়ে রাজপথে মানতে পারছে না সরকারবিরোধী দলগুলো। এতে অনেকটাই ফুরফুরে মেজাজে টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার পরিচালনা করছে আওয়ামী লীগ। যার করণে দলের তৃণমূল থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত প্রপিং-কোন্দল ও সংকট তৈরি হলেও সহসায় সেগুলো মিটে যায়। যদিও এসব ক্ষোভ আর হতাশা দিনকে দিন দলের ত্যাগী ও দু:সময়ের কর্মীদের মাঝে দানা বাধছে। কেউ কেউ রাজনীতি থেকে দুরে চলে যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ নিষ্কৃয় হয়ে পড়েছে। এসব বিষয়ে তৃণমূলের কর্মীরা বলছেন, আওয়ামী লীগ টানা তিনবার ক্ষমতায় থাকায় দলের পরীক্ষিত ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন কমে যাচ্ছে। ফলে এসব নেতা ও কর্মীরাও অনুপ্রবেশকারিদের ঠেলায় টিকতে না পেরে রাজনীতি থেকে নিষ্কৃয়ী হয়ে পড়েছে। তাছাড়া অনেক সংসদীয় আসনে দলের ত্যাগীদের বাদ দিয়ে বিএনপি-জামায়াত আর্দশের ব্যাক্তিদের দলীয় মনোনয়ন দেয়ায় সেইসব এলাকায় একপ্রকার অত্যাচার চলছে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের উপর।
১৪ দল বা মহাজোটভুক্ত দলগুলোর ক্ষোভ থাকলেও সরকারের প্রধান দলের বিরুদ্ধে নেতিবাচক কথাবার্তা খুব কমই দেখা গেছে। কখনো কখনো বিএনপির সাথে পাল্টাপাল্টি বিতর্কে জড়িয়ে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত রেখেছিল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। কিন্তু এবার দলের ভেতরেই শুরু হয়েছে নতুন সংকট। একদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা, অন্যদিকে ঢাকার সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন ও বর্তমান মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগে উত্তপ্ত রাজনৈতিক অঙ্গন। এ উত্তাপ এখন রাজধানীসহ সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। যদিও শাসকদল থেকে বলা হচ্ছে, আওয়ামী লীগে ‘সমালোচনার সংস্কৃতি’ রয়েছে বলে নেতৃত্বেরও সমালোচনা হয়। কিন্তু এ নিয়ে নতুন আলোচনা শুরু হয়েছে জনগণের মাঝে। এ কারণে ক্ষমতাসীন দলে বিষয়টি নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ শুরু হয়েছে। দলের নীতিনির্ধারকরা বিষয়টি আমলে নিয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। গত শনিবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের কঠোর সমালোচনা করেন সংস্থাটির সদ্য সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন। তাপস আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের সদস্য সচিব আর সাঈদ খোকন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সদস্য। দুজনেরই আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে পারিবারিক ঐতিহ্য রয়েছে। সাঈদ খোকনের বক্তব্য নিয়ে গত রোববার কথা বলেছেন ডিএসসিসি মেয়র শেখ তাপস ও দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ। তাছাড়া আওয়ামীপন্থি আইনজীবীরা সাঈদ খোকনকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছেন। বেশ কিছুদিন ধরে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে নানা মন্তব্য করছেন নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি ও দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ভাই মির্জা আবদুল কাদের। এমনকি তার বক্তব্যে নিজের ভাই ওবায়দুল কাদেরেরও সমালোচনা করেছেন।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, নোয়াখালীর সংসদ সদস্য একরামুল হক চৌধুরী, সিপিবি নেতা রুহিন প্রিন্স ও নিজাম হাজারী এমপির কট্টর সমালোচনা করে অপ্রত্যাশিত বক্তব্য দিয়েছেন মির্জা আবদুল কাদের। ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা বসুরহাট পৌরসভার আসন্ন নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় প্রার্থী। তার এসব বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিতে দেখা গেছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডক্টর হাছান মাহমুদকে। তাছাড়া দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এক নেতার বিরুদ্ধে অন্য নেতা বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে মারামারি, খুনাখুনির ঘটনাও ঘটছে বিভিন্ন স্থানে। তবে এসব বিষয়কে দলের ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা’ বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডক্টর হাছান মাহমুদ। পাশাপাশি পরস্পরবিরোধী এসব বক্তব্য তাদের ব্যক্তিগত বলেও মন্তব্য করেন তিনি। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাই মির্জা আবদুল কাদের বিভিন্ন বক্তব্য দিচ্ছেন, ঢাকায় দক্ষিণ সিটি মেয়র ফজলে নূর তাপস ও সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দিচ্ছেন, এতে দলীয় শৃঙ্খলায় কোনো ঘাটতি তৈরি হচ্ছে কিনা- জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রথমতো মেয়র তাপসের বিষয়ে সাঈদ খোকন বক্তব্য দিয়েছেন এগুলো তাদের ব্যক্তিগত বিষয়। এখানে দলের কোনো কিছু নেই। নোয়াখালীতে মির্জা কাদের সাহেব যে বক্তব্য দিয়েছেন, আমাদের দলে এ রকম বক্তব্য বহু আগে অনেকেই দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমাদের দলে মুক্তভাবে কথা বলার অধিকার সবার আছে। তার বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে মির্জা কাদের সাহেবের বক্তব্য। কিন্তু আগের বক্তব্যগুলো এত প্রকাশ হয়নি। কারণ তখন যারা বক্তব্য দিয়েছেন তারা তো দলে সাধারণ সম্পাদকের ভাই ছিল না। এখন যেহেতু সাধারণ সম্পাদকের ভাই বক্তব্য দিয়েছেন এজন্য এগুলো প্রতিদিন প্রচার পায়। এই হচ্ছে পার্থক্য। কক্সবাজারের টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. উসমান শিকদারকে বাড়ি ফেরার পথে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে আধিপত্য বিস্তারের জন্য প্রতিপক্ষে গ্রপের কেউ এ ঘটনা ঘটাতে পারেন।
এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় নির্বাচনসহ নানা ইস্যুতে আবারও প্রকাশ্যে আসতে শুরু করছে ঘরোয়া কোন্দল। অধিকাংশ জেলা-উপজেলায় আওয়ামী লীগের শত্রু আওয়ামী লীগই। গত ২২ নভেম্বর সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লতিফ বিশ্বাস এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. হাবিবে মিলস্নাতকে তাদের পদ থেকে অব্যাহত দেওয়া হয়। কে এম হোসেন আলী হাসান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং আবদুস সামাদ তালুকদার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান। দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হোসেন আলী হাসান দল এবং জেলার সরকারি দপ্তরগুলোতে নিজের আধিপত্য বিস্তারে তৎপর হয়ে ওঠেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হোসেন আলী হাসান দায়িত্ব পাওয়ার পর বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন পদ দিয়েছেন। সন্ত্রাসীদের নিজের গ্রুপে ভিড়িয়ে তৃণমূলের অনেক নেতা-কর্মীকে হয়রানি করছেন। পৌর নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়নের জন্যই তিনি বিপুল পরিমাণ টাকা নিয়েছেন। এরমধ্যে সিরাজগঞ্জ পৌরসভায় দলীয় মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় ২ কোটি টাকা এবং শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র প্রার্থী তরু লোদীর কাছ থেকে ১ কোটি টাকা নেয়ার ঘটনা আলোচনায় এসেছে। আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির চাঁদাবাজির কারণে সিরাজগঞ্জের ব্যবসায়ীদের মধ্যে বর্তমানে আতঙ্ক বিরাজ করছে। গত এক মাসে অসংখ্য ব্যবসায়ীর কাছ থেকে তিনি চাঁদা আদায় করেছেন। এরমধ্যে নাম প্রকাশে ভীতসস্ত্র চার জন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৯ লাখ টাকা করে চাঁদা নিয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এসব বিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার জন্য লতিফ বিশ্বাসকে একাধিকবার ফোন করেও তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়াম্যানের গাড়িতে হামলা: গত ৫জানুয়ারি কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে দলের প্রয়াত এক নেতা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আবদুল ওহাব আইনুদ্দিনের মিলাদ মাহফিলে অংশ নিতে গিয়ে পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুর সরকারি গাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর চালায় স্থানীয় সাংসদ নূর মোহাম্মদ এর অনুসারিরা। এ ঘটনায় আদালতে দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (০৭ জানুয়ারি) দুপুরে এই ঘটনায় কিশোরগঞ্জের দ্রুত বিচার আদালতে মামলা দায়ের করেন উপজেলা চেয়ারম্যান রেনু। ওই মামলায় কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া ইউনিয়ন যুবলীগ (সাবেক যুবদল নেতা) নেতা জাকির হোসেন সুমন, বুরুদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমুল হুদা রুবেল ও রুবেল হোসেনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১৫ থেকে ২০ জনকে আসামি করা হয়। মামলার এজাহারে বলা হয়, পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু গত ৫ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মসুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত কটিয়াদী উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রয়াত সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াহাব আইন উদ্দিনের স্মরণে মিলাদ মাহফিলে যোগ দিতে যান। এ সময় যুবলীগ নেতা জাকির হোসেন সুমনের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা তার ওপর হামলা চালায় এবং তার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এ সময় গাড়ির ড্রাইভারকেও মারপিট করা হয় বলে মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়। কিশোরগঞ্জ-২ আসনের এমপি নূর মোহাম্মদ নিজ সংসদীয় এলাকায় এরইমধ্যে এমপি লীগের রাজত্ব কায়েক করতে ওঠে পড়ে রেলেছেন। গড়ে তুলেছেন নিজ বলয়ে একটি বাহিনী। তার পিতা নুন্দর আলী ছিলেন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম সাক্ষী। একসময়ের বিএনপির দুর্গ হিসেবে পরিচিত কিশোরগঞ্জ-২ আসনটিকে আওয়ামী লেিগর দুর্গে পরিনত করেছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেস্টাম-লীর অন্যতম সদস্য ও প্রয়াত এমপি প্রফেসর আবদুল মান্নান। তবে বর্তমান এমপি নুর মোহাম্মদ নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে বিএনপি-জামায়াতকে লালন-পালন শুরু করলে তৃনমুল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আস্তে আস্তে নিষ্কৃয় হয়ে যায়। তবে এসব বিষয়ে জানতে কিশোরগঞ্জ-২ আসনের এমপিকে একাধিবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বাংলার খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com