পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :
Logo বগুড়ায় প্রকাশ্যে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা Logo কুমিল্লায় এনজিও সংস্থা দিয়া’র কর্মীদের প্রশিক্ষণ সভা অনুষ্ঠিত। Logo বগুড়া আদমদীঘিতে প্রয়াত সাত সাংবাদিক স্বরণে সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo অতিরিক্ত ডিআইজি হারালেন মেয়েকে স্ত্রীর মৃত্যুর পর বিয়ে করেননি, মেয়ের শোক সইবেন কী করে? Logo জেলা প্রশাসক ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২৪ ইং ফাইনালে লালমনিরহাট পৌরসভা বিজয়ী Logo বগড়া আদমদীঘিতে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো বীজ রোপণে Logo আধুনিক সেনাবাহিনী গড়ে তুলতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী Logo বেইলি রোডে আগুন: স্ত্রী-সন্তানসহ কাস্টমস কর্মকর্তার মৃত্যু Logo বিপিএলের শিরোপা গেলো বরিশালের ঘরে Logo বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) সেবায় ভূষিত হয়েছেন আদমদিঘীর সন্তান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম।

বাঁশ দিয়ে তৈরি করা পণ্য বিক্রি করে মাসে লাখ টাকা আয় করেন আশরাফুলের পরিবার।

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক লালমনিরহাট: বাঁশেই জীবিকার প্রধান বাহক হিসাবে আঁকড়ে ধরে রেখেছেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার আশরাফুলের পরিবার। এই বাঁশেই বর্তমানে তাদের জীবিকার প্রধান বাহক। বাঁশের তৈরি নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্যের চাহিদা থাকায় এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত হয়ে পড়েছেন পরিবারটি। জীবন জীবিকার তাগিদে বাবা-দাদার এই পেশাকে ধরে রেখেছেন পরিবারটি। লালমনিরহাট আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়নের ধনীটারী এলাকার আশরাফুল ইসলাম এর পরিবারে রয়েছেন দুই স্ত্রী রুজিনা ও মোর্শেদা আশরাফুল ইসলাম উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বাঁশ কিনে আনেন আর তার দুই স্ত্রী ও তাদের পরিবারের সন্তানরা মিলে রাতে দিনে পরিশ্রম করে বাঁশ কেটে তা দিয়ে তৈরি করেন ডালি, কুলা,ধারা ও ডুলি সহ বিভিন্ন জিনিসপত্র আর সেগুলো আশরাফুল ও তার ছেলে মোর্শেদুল মিলে নিজ ভ্যানে করে জেলার বিভিন্ন হাটে বিক্রি করেন, এতে প্রতি হাটেই ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা বিক্রি করেন তিনি মাস শেষে আয় করেন লাখ টাকা।

তার স্ত্রী রুজিনা বলেন বাঁশের তৈরি জিনিসপত্রের এখনো অনেক চাহিদা রয়েছে আমরা যত বেশি বাঁশের তৈরি জিনিসপত্র তৈরি করবো যত বেশি বিক্রি করব তত বেশি আয় হবে আমরা সুখী পরিবার আমাদের পরিবারের সব চাহিদা মিটিয়ে প্রতি মাসে ৪৭ হাজার টাকা কিস্তি পরিশোধ করছি আমরা নিজেরাই পরিশ্রম করে মেলা টাকা কামাই। আশরাফুলের

আরেক স্ত্রী মোর্শেদা বলেন একটি বাঁশ থেকে তিনটি ধারা হয় আমরা একটি বাঁশ থেকে পাঁচশত থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত আয় করে থাকি একটি ভালো মানের বাঁশ কিনতে ৪০০টাকা লাগে। একটি ধারা বিক্রি হয় ৩৫০ থেকে ৪০০টাকা পর্যন্ত একদিনেই একাই ৩ টি ধারা তৈরি করতে পারি এছাড়াও ডালি, কুলা,ডুলি,চালুন ও আসামি ধরা সহ অন্যান্য জিনিসপত্রেও আমরা অনেক টাকা লাভ করে থাকি।

আশরাফুল ইসলাম বলেন,বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বসতবাড়ি বৃদ্ধির সাথে সাথে ক্রমাগত হারিয়ে যাচ্ছে বাঁশ বৃদ্ধি পেয়েছে দাম তবুও লাভ আছে এ শিল্পে । বাঁশ তৈরির পণ্যের কদর আছে এখনও । বাঁশের বিকল্প হিসেবে ক্ষতিকর প্লাস্টিকের বিভিন্ন পন্য তৈরির কারনে ঐতিহ্য হারাতে বসেছে এই শিল্পটি।
স্বল্প দামে হাতের নাগালে প্লাস্টিক সামগ্রী পাওয়ায় কুটির শিল্পের চাহিদা কমে গেছে কিন্তু তার পরও বাঁশের তৈরি কিছু জিনিসপত্রের কদর রয়েই গেছে। আশরাফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা বলেন সরকারি কোনো সুযোগ সুবিধা পেলে এ ব্যবসাটি আরও বড়ো এবং আধুনিকায়ন করতেন তিনি এবং এখানে অনেক লোকের কর্মসংস্থান করে দিতে পারতেন তিনি।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

বগুড়ায় প্রকাশ্যে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

বাঁশ দিয়ে তৈরি করা পণ্য বিক্রি করে মাসে লাখ টাকা আয় করেন আশরাফুলের পরিবার।

আপডেট টাইম : ০৩:০১:১২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০২৩

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক লালমনিরহাট: বাঁশেই জীবিকার প্রধান বাহক হিসাবে আঁকড়ে ধরে রেখেছেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার আশরাফুলের পরিবার। এই বাঁশেই বর্তমানে তাদের জীবিকার প্রধান বাহক। বাঁশের তৈরি নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্যের চাহিদা থাকায় এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত হয়ে পড়েছেন পরিবারটি। জীবন জীবিকার তাগিদে বাবা-দাদার এই পেশাকে ধরে রেখেছেন পরিবারটি। লালমনিরহাট আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়নের ধনীটারী এলাকার আশরাফুল ইসলাম এর পরিবারে রয়েছেন দুই স্ত্রী রুজিনা ও মোর্শেদা আশরাফুল ইসলাম উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বাঁশ কিনে আনেন আর তার দুই স্ত্রী ও তাদের পরিবারের সন্তানরা মিলে রাতে দিনে পরিশ্রম করে বাঁশ কেটে তা দিয়ে তৈরি করেন ডালি, কুলা,ধারা ও ডুলি সহ বিভিন্ন জিনিসপত্র আর সেগুলো আশরাফুল ও তার ছেলে মোর্শেদুল মিলে নিজ ভ্যানে করে জেলার বিভিন্ন হাটে বিক্রি করেন, এতে প্রতি হাটেই ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা বিক্রি করেন তিনি মাস শেষে আয় করেন লাখ টাকা।

তার স্ত্রী রুজিনা বলেন বাঁশের তৈরি জিনিসপত্রের এখনো অনেক চাহিদা রয়েছে আমরা যত বেশি বাঁশের তৈরি জিনিসপত্র তৈরি করবো যত বেশি বিক্রি করব তত বেশি আয় হবে আমরা সুখী পরিবার আমাদের পরিবারের সব চাহিদা মিটিয়ে প্রতি মাসে ৪৭ হাজার টাকা কিস্তি পরিশোধ করছি আমরা নিজেরাই পরিশ্রম করে মেলা টাকা কামাই। আশরাফুলের

আরেক স্ত্রী মোর্শেদা বলেন একটি বাঁশ থেকে তিনটি ধারা হয় আমরা একটি বাঁশ থেকে পাঁচশত থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত আয় করে থাকি একটি ভালো মানের বাঁশ কিনতে ৪০০টাকা লাগে। একটি ধারা বিক্রি হয় ৩৫০ থেকে ৪০০টাকা পর্যন্ত একদিনেই একাই ৩ টি ধারা তৈরি করতে পারি এছাড়াও ডালি, কুলা,ডুলি,চালুন ও আসামি ধরা সহ অন্যান্য জিনিসপত্রেও আমরা অনেক টাকা লাভ করে থাকি।

আশরাফুল ইসলাম বলেন,বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বসতবাড়ি বৃদ্ধির সাথে সাথে ক্রমাগত হারিয়ে যাচ্ছে বাঁশ বৃদ্ধি পেয়েছে দাম তবুও লাভ আছে এ শিল্পে । বাঁশ তৈরির পণ্যের কদর আছে এখনও । বাঁশের বিকল্প হিসেবে ক্ষতিকর প্লাস্টিকের বিভিন্ন পন্য তৈরির কারনে ঐতিহ্য হারাতে বসেছে এই শিল্পটি।
স্বল্প দামে হাতের নাগালে প্লাস্টিক সামগ্রী পাওয়ায় কুটির শিল্পের চাহিদা কমে গেছে কিন্তু তার পরও বাঁশের তৈরি কিছু জিনিসপত্রের কদর রয়েই গেছে। আশরাফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা বলেন সরকারি কোনো সুযোগ সুবিধা পেলে এ ব্যবসাটি আরও বড়ো এবং আধুনিকায়ন করতেন তিনি এবং এখানে অনেক লোকের কর্মসংস্থান করে দিতে পারতেন তিনি।