পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :
Logo ময়মনসিংহ বিআরটিএ টাকা ছাড়া কাজ করেন না সহকারী পরিচালক এস এম ওয়াজেদ, সেবাগ্রহীতাদের অসন্তোষ Logo বগুড়ায় দুর্বৃত্তের ছোড়া গুলিতে গৃহবধু আহত Logo বাউফলে নির্বাচনী সহিংসতা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাংচুর, ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে জখম।  Logo সান্তাহারে ট্রেনে পৃথক স্থানে কাটা পড়ে দুই যুবকের মৃত্য Logo বগুড় সান্তাহারে এক স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা Logo জন্মগত জটিল রোগে ভুগছেন শিশু কাওসার, অর্থের অভাবে থেমে আছে চিকিৎসা। Logo বিআরটিএ’র পরিদর্শক আরিফুলের অবৈধ সম্পদের পাহার, দুদকের মামলা, এখনো বহাল তবিয়তে Logo বেবিচকের ধনকুবের খ্যাত শত কোটি টাকার মালিক সুব্রত চন্দ্র দে। দুদকে অভিযোগে Logo বিআরটিএ’র পরিদর্শক আরিফুলের অবৈধ সম্পদের পাহার, দুদকের মামলা, এখনো বহাল তবিয়তে Logo এতদিন কি তাহলে বিআরটিএ ঘুমিয়ে ছিল? প্রশ্ন কাদেরের

অভাবের তাড়নায় ৩ মেয়েকে হত্যা করেছে মা-বাবার!

ডেস্ক: বাড়িতে রাখা একটি ট্রাঙ্কের ভেতর থেকে তিন বোনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার ভারতের পাঞ্জাবের জলন্ধর জেলার কানপুর গ্রাম থেকে লাশগুলো উদ্ধার করা হয়।

নিহত তিন বোন হলো-অমৃতা কুমারী (৯), কাঞ্চন কুমারী (৭) ও ভাসু (৩)। এ ঘটনায় পুলিশ নিহতদের বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ জানায়, শিশুদের বাবা সুনীল মণ্ডল ও মা মঞ্জু মণ্ডল শ্রমিকের কাজ করেন। রোববার রাতে কাজ থেকে ফিরে তিন মেয়েকে দেখতে না পেয়ে স্থানীয় থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন তারা।

এরপর ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ। তিন বোনের সন্ধানে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করা হয়। পরে ওই দম্পতির ঘরের একটি পুরোনো ট্রাঙ্ক থেকে তিন বোনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রাথমিকভাবে ওই দম্পতিকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা বাড়ির মালিকের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেন। তাদের দাবি, সুনীল বাড়িতেই মদ্যপান করতেন। আর তাতে আপত্তি জানিয়েছিলেন বাড়ির মালিক। তিনি তাদের বাড়ি ছেড়ে দিতে বলেছিলেন। কিন্তু বাড়ি ছাড়তে রাজি হননি সুনীল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে তর্ক হয়। সে কারণে বাড়ির মালিক তাদের মেয়েদের খুন করেন বলে ওই দম্পতি অভিযোগ করেন।

কিন্তু ওই দম্পতির ঘর থেকেই লাশ উদ্ধার হওয়ায় সন্দেহ হয় পুলিশের। এরপর পুলিশি জেরায় খুনের কথা স্বীকার করেন সুনীল ও মঞ্জু দম্পতি।

পুলিশকে তারা জানিয়েছেন, অভাবের সংসারে মেয়েদের ভরণপোষণ করতে পারছিলেন না। সেই কারণে তিন মেয়েকে তারা বিষ খাইয়ে হত্যা করেছেন। ওই দম্পত্তি বিহারের বাসিন্দা। তারা কাজের কারণে পাঞ্জাবে থাকতেন। তাদের আরও দুই ছেলে রয়েছে।

সিনিয়র পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) মুখবিন্দর সিং ভুলার বলেন, তিন বোনের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন ছিল না। মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনার আরও তদন্ত করা হচ্ছে।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

ময়মনসিংহ বিআরটিএ টাকা ছাড়া কাজ করেন না সহকারী পরিচালক এস এম ওয়াজেদ, সেবাগ্রহীতাদের অসন্তোষ

অভাবের তাড়নায় ৩ মেয়েকে হত্যা করেছে মা-বাবার!

আপডেট টাইম : ১২:৪৯:১৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর ২০২৩

ডেস্ক: বাড়িতে রাখা একটি ট্রাঙ্কের ভেতর থেকে তিন বোনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার ভারতের পাঞ্জাবের জলন্ধর জেলার কানপুর গ্রাম থেকে লাশগুলো উদ্ধার করা হয়।

নিহত তিন বোন হলো-অমৃতা কুমারী (৯), কাঞ্চন কুমারী (৭) ও ভাসু (৩)। এ ঘটনায় পুলিশ নিহতদের বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ জানায়, শিশুদের বাবা সুনীল মণ্ডল ও মা মঞ্জু মণ্ডল শ্রমিকের কাজ করেন। রোববার রাতে কাজ থেকে ফিরে তিন মেয়েকে দেখতে না পেয়ে স্থানীয় থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন তারা।

এরপর ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ। তিন বোনের সন্ধানে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করা হয়। পরে ওই দম্পতির ঘরের একটি পুরোনো ট্রাঙ্ক থেকে তিন বোনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রাথমিকভাবে ওই দম্পতিকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা বাড়ির মালিকের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেন। তাদের দাবি, সুনীল বাড়িতেই মদ্যপান করতেন। আর তাতে আপত্তি জানিয়েছিলেন বাড়ির মালিক। তিনি তাদের বাড়ি ছেড়ে দিতে বলেছিলেন। কিন্তু বাড়ি ছাড়তে রাজি হননি সুনীল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে তর্ক হয়। সে কারণে বাড়ির মালিক তাদের মেয়েদের খুন করেন বলে ওই দম্পতি অভিযোগ করেন।

কিন্তু ওই দম্পতির ঘর থেকেই লাশ উদ্ধার হওয়ায় সন্দেহ হয় পুলিশের। এরপর পুলিশি জেরায় খুনের কথা স্বীকার করেন সুনীল ও মঞ্জু দম্পতি।

পুলিশকে তারা জানিয়েছেন, অভাবের সংসারে মেয়েদের ভরণপোষণ করতে পারছিলেন না। সেই কারণে তিন মেয়েকে তারা বিষ খাইয়ে হত্যা করেছেন। ওই দম্পত্তি বিহারের বাসিন্দা। তারা কাজের কারণে পাঞ্জাবে থাকতেন। তাদের আরও দুই ছেলে রয়েছে।

সিনিয়র পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) মুখবিন্দর সিং ভুলার বলেন, তিন বোনের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন ছিল না। মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনার আরও তদন্ত করা হচ্ছে।