পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :
Logo বগুড়ায় প্রকাশ্যে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা Logo কুমিল্লায় এনজিও সংস্থা দিয়া’র কর্মীদের প্রশিক্ষণ সভা অনুষ্ঠিত। Logo বগুড়া আদমদীঘিতে প্রয়াত সাত সাংবাদিক স্বরণে সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo অতিরিক্ত ডিআইজি হারালেন মেয়েকে স্ত্রীর মৃত্যুর পর বিয়ে করেননি, মেয়ের শোক সইবেন কী করে? Logo জেলা প্রশাসক ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২৪ ইং ফাইনালে লালমনিরহাট পৌরসভা বিজয়ী Logo বগড়া আদমদীঘিতে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো বীজ রোপণে Logo আধুনিক সেনাবাহিনী গড়ে তুলতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী Logo বেইলি রোডে আগুন: স্ত্রী-সন্তানসহ কাস্টমস কর্মকর্তার মৃত্যু Logo বিপিএলের শিরোপা গেলো বরিশালের ঘরে Logo বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) সেবায় ভূষিত হয়েছেন আদমদিঘীর সন্তান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম।

আমদানি করা ডিম কেন দেশে আসছে না?

ডেস্ক: সরবরাহ সংকটে আবারও অস্থির বাজার। সপ্তাহ ব্যবধানে ৭ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে ফার্মের মুরগির ডিমের দর। এমন পরিস্থিতিতে আমদানি করা ডিম কেন দেশে আসছে না, সেই প্রশ্ন সাধারণ মানুষের। এক্ষেত্রে সরকারের পদক্ষেপও কার্যকর নয়। অনুমতি পাওয়া আমদানিকারকরা বলছেন, সবধরনের প্রস্তুতি নেয়া আছে। ডিম আসতে পারে যেকোনো সময়।

চড়া দরের কারণে মাছ-মাংস কেনার সামর্থ হারানো বহু মানুষের আমিষের চাহিদা মিটছে ডিমে। কিন্তু আবারও অস্থির হয়ে উঠেছে বাজার। টিসিবির হিসাবে, সপ্তাহ ব্যবধানে ফার্মের মুরগির ডিমের দাম বেড়েছে প্রায় ৭ শতাংশ। খুচরা বাজারে মানভেদে একেকটি বিক্রি হচ্ছে ১২ টাকা পর্যন্ত। অথচ গেলো নভেম্বরে আমদানি করা মাত্র ৬২ হাজার ডিমের ধাক্কায় ১০ টাকার নিচে নামে পণ্যটির মূল্য।

এক ক্রেতা বলেন, আগে মাছের দাম বেশি হলে ডিম কিনতাম। এখন দেখি মাছের চেয়ে ডিমেরেই দর বেশি। ফলে ডিম কিনে খেতেও কষ্ট পেতে হচ্ছে আমাদের।

এক বিক্রেতা বলেন, বাজারে যে পরিমাণ ডিম আসার কথা, সেটার চেয়ে কম আসছে। কারণ, ফার্মে (খামার) ডিমের উৎপাদন কমে গেছে। আরেক বিক্রেতা বলেন, আগে যখন বিদেশ থেকে আসছিল, তখন মূল্য কম ছিল। এখন আসছে না, তাই দর বেশি।

বাজারে সরবরাহ বাড়ানোর মাধ্যমে ডিমের দর স্বাভাবিক রাখতে কয়েক দফায় অন্তত ২০টি প্রতিষ্ঠানকে আমদানির অনুমোদন দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ঋণপত্র খোলাসহ প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিলেও আনতে পারেনি গেলো সাড়ে ৪ মাসে।

প্রাইম এনার্জির স্বত্বাধিকারী নিজাম উদ্দিন বলেন, যখনই আমরা ডিম নিয়ে আসার চেষ্টা করি, তখনই প্রান্তিক পর্যায়ে দাম কমে যায়। আমদানিকারকরা যাতে আমদানি করতে না পারেন, সেজন্য একটি মহল তৎপর থাকে। তারাই এই কারসাজি করে।

টাইগার ট্রেডিংয়ের স্বত্বাধিকারী মো. সাইফুর রহমান বলেন, ওই মহল মনে করছে, আমদানিকারকরা একবার আমদানি করেছে, আর করবে না। তাই তারা ডিমের মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। এখন সরকার, জনগণকে সহায়তা করার সুযোগ এসেছে আমাদের। আবার আমরা আমদানি করে দরে ভারসাম্য আনার চেষ্টা করছি।

বিদেশি ডিমের ওপর শুল্ক ছাড়ের দাবি জানান আমদানিকারকরা।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

বগুড়ায় প্রকাশ্যে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

আমদানি করা ডিম কেন দেশে আসছে না?

আপডেট টাইম : ০৮:১৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ডেস্ক: সরবরাহ সংকটে আবারও অস্থির বাজার। সপ্তাহ ব্যবধানে ৭ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে ফার্মের মুরগির ডিমের দর। এমন পরিস্থিতিতে আমদানি করা ডিম কেন দেশে আসছে না, সেই প্রশ্ন সাধারণ মানুষের। এক্ষেত্রে সরকারের পদক্ষেপও কার্যকর নয়। অনুমতি পাওয়া আমদানিকারকরা বলছেন, সবধরনের প্রস্তুতি নেয়া আছে। ডিম আসতে পারে যেকোনো সময়।

চড়া দরের কারণে মাছ-মাংস কেনার সামর্থ হারানো বহু মানুষের আমিষের চাহিদা মিটছে ডিমে। কিন্তু আবারও অস্থির হয়ে উঠেছে বাজার। টিসিবির হিসাবে, সপ্তাহ ব্যবধানে ফার্মের মুরগির ডিমের দাম বেড়েছে প্রায় ৭ শতাংশ। খুচরা বাজারে মানভেদে একেকটি বিক্রি হচ্ছে ১২ টাকা পর্যন্ত। অথচ গেলো নভেম্বরে আমদানি করা মাত্র ৬২ হাজার ডিমের ধাক্কায় ১০ টাকার নিচে নামে পণ্যটির মূল্য।

এক ক্রেতা বলেন, আগে মাছের দাম বেশি হলে ডিম কিনতাম। এখন দেখি মাছের চেয়ে ডিমেরেই দর বেশি। ফলে ডিম কিনে খেতেও কষ্ট পেতে হচ্ছে আমাদের।

এক বিক্রেতা বলেন, বাজারে যে পরিমাণ ডিম আসার কথা, সেটার চেয়ে কম আসছে। কারণ, ফার্মে (খামার) ডিমের উৎপাদন কমে গেছে। আরেক বিক্রেতা বলেন, আগে যখন বিদেশ থেকে আসছিল, তখন মূল্য কম ছিল। এখন আসছে না, তাই দর বেশি।

বাজারে সরবরাহ বাড়ানোর মাধ্যমে ডিমের দর স্বাভাবিক রাখতে কয়েক দফায় অন্তত ২০টি প্রতিষ্ঠানকে আমদানির অনুমোদন দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ঋণপত্র খোলাসহ প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিলেও আনতে পারেনি গেলো সাড়ে ৪ মাসে।

প্রাইম এনার্জির স্বত্বাধিকারী নিজাম উদ্দিন বলেন, যখনই আমরা ডিম নিয়ে আসার চেষ্টা করি, তখনই প্রান্তিক পর্যায়ে দাম কমে যায়। আমদানিকারকরা যাতে আমদানি করতে না পারেন, সেজন্য একটি মহল তৎপর থাকে। তারাই এই কারসাজি করে।

টাইগার ট্রেডিংয়ের স্বত্বাধিকারী মো. সাইফুর রহমান বলেন, ওই মহল মনে করছে, আমদানিকারকরা একবার আমদানি করেছে, আর করবে না। তাই তারা ডিমের মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। এখন সরকার, জনগণকে সহায়তা করার সুযোগ এসেছে আমাদের। আবার আমরা আমদানি করে দরে ভারসাম্য আনার চেষ্টা করছি।

বিদেশি ডিমের ওপর শুল্ক ছাড়ের দাবি জানান আমদানিকারকরা।