পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :

স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ইতালি যাওয়া হলো না মোবারকের

ডেস্ক: ইতালি প্রবাসী সৈয়দ মোবারক হোসেন বেইলি রোডের আগুনে পুড়ে স্ত্রী-সন্তানসহ মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে সৈয়দ মোবারক তার স্ত্রী স্বপ্না (৩৮), মেয়ে সৈয়দা তাশফি (১৭), ছেলে সৈয়দা নূর (১৫) ও সৈয়দ আব্দুল্লাহকে নিয়ে বাসা থেকে বের হন ‘কাচ্চি ভাইতে’ খাওয়ার জন্য। সেখানে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান মোবারক হোসেনসহ পরিবারের সবাই।

মোবারকের চাচাতো ভাই সৈয়দ ফয়সাল জানান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মাসখানেক আগে ইতালি থেকে দেশে এসেছিলেন মোবারক। সেখানে তিনি ব্যবসা করতেন। স্থায়ীভাবে থাকার সুযোগ পেয়েছেন। স্ত্রী ও সন্তানদের সেখানে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ভিসাও হয়ে গিয়েছিল সবার। কিন্তু ইতালি আর যাওয়া হলো না তাদের!

সৈয়দ ফয়সাল আরও বলেন, প্রবাসী মোবারকের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে। তিনি ঢাকার মগবাজার এলাকায় থাকতেন। পরিবারের সবাইকে নিয়ে খেতে যাওয়াটাই কাল হলো তাদের। পরিবারের আর কেউ বেঁচে রইলো না।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে রাজধানীর বেইলি রোডে একটি ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে নারী-শিশুসহ প্রাণ গেছে অন্তত ৪৫ জনের।

আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। তাদের ঢাকা মেডিকেল, শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের বেশিরভাগের অবস্থাই আশঙ্কাজনক।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

চট্টগ্রামে বিআরটিএর অভিযানে ১৭ মামলা, জরিমানা অর্ধলাখ

স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ইতালি যাওয়া হলো না মোবারকের

আপডেট টাইম : ০৬:০৮:৩২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

ডেস্ক: ইতালি প্রবাসী সৈয়দ মোবারক হোসেন বেইলি রোডের আগুনে পুড়ে স্ত্রী-সন্তানসহ মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে সৈয়দ মোবারক তার স্ত্রী স্বপ্না (৩৮), মেয়ে সৈয়দা তাশফি (১৭), ছেলে সৈয়দা নূর (১৫) ও সৈয়দ আব্দুল্লাহকে নিয়ে বাসা থেকে বের হন ‘কাচ্চি ভাইতে’ খাওয়ার জন্য। সেখানে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান মোবারক হোসেনসহ পরিবারের সবাই।

মোবারকের চাচাতো ভাই সৈয়দ ফয়সাল জানান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মাসখানেক আগে ইতালি থেকে দেশে এসেছিলেন মোবারক। সেখানে তিনি ব্যবসা করতেন। স্থায়ীভাবে থাকার সুযোগ পেয়েছেন। স্ত্রী ও সন্তানদের সেখানে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ভিসাও হয়ে গিয়েছিল সবার। কিন্তু ইতালি আর যাওয়া হলো না তাদের!

সৈয়দ ফয়সাল আরও বলেন, প্রবাসী মোবারকের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে। তিনি ঢাকার মগবাজার এলাকায় থাকতেন। পরিবারের সবাইকে নিয়ে খেতে যাওয়াটাই কাল হলো তাদের। পরিবারের আর কেউ বেঁচে রইলো না।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে রাজধানীর বেইলি রোডে একটি ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে নারী-শিশুসহ প্রাণ গেছে অন্তত ৪৫ জনের।

আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। তাদের ঢাকা মেডিকেল, শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের বেশিরভাগের অবস্থাই আশঙ্কাজনক।