পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :

বগড়া আদমদীঘিতে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো বীজ রোপণে

সজীব হাসান,( বগুড়া): শষ্যভান্ডার হিসেবে খ্যাত বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার কৃষকরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো ধান রোপণে। কৃষি প্রধান এই অঞ্চলে শাক- সবজি,সরিষা,আলু চাষ হঔের অর্থকারী ফসল হিসেবে বোরো ধানই কৃষকদের একমাত্র ভরসা। তাই উপজেলার কৃষকরা বর্তমানে বোরো ধান রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মাঠে মাঠে চলছে হাল-চাষ, জমির আইল নির্মাণ, পানি সেচ, চারা রোপণ ইত্যাদি কাজ। কেউবা জমিতে সার ও পাইশ কেইবা জমির আগাছা বাছাই করে এক জয়গায় স্তপ করে রাখছে। এমন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য এখন উপজেলার প্রায় সর্বত্র। এ যেন আদমদীঘি উপজেলার কৃষদের ঈদ আনন্দ। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবারে বোরো ধানের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১২,৪৫২ হেক্টর। ইতিমধ্যে ৮০ ভাগ জমিতে ধানের চারা রোপণ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এবারেও উপজেলায় বোরো আবাদ বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। উপজেলার সান্তাহার মালশন গ্রামের কৃষক হোসেন জানান, বোরো ধান আবাদ করতে দিন-রাত পরিশ্রম করতে হয়। এ ছাড়া বোরো আবাদে খরচও বেশি। বোরো ধান লাগানোর পর থেকে তিন-চার দিন পর পর জমিতে সেচ দিতে হয়। আশা করছি
এ বোরো আবাদে নায্য দাম পাব। তবে এসব নির্ভর করবে আবহাওয়ার উপর। এই আবাদই
আমাদের ভরসা। আদমদীঘি সদর ইউনিয়নের করজবাড়ির কৃষক নূর ইসলাম জানান, ধান আবাদে আমরা তেমন নায্য দাম পাইনা। তবে বাপ-দাদার পেশা, ছাড়তে পারি না। প্রায় কৃষি উপকরণের
দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। জমির পানি, শ্রমিকের মজুরী, কিটনাশক, সার- এসবের পেছনে বিনিয়োগ করার পর যা ধান পাওয়া যায়, তাতে লাভ তেমন থাকে না।
আদমদীঘি উপজেলা কৃষি অফিসার মিঠু চন্দ্র অধিকারী জানান, চলতি বোরো মৌসুমে খাদ্য উৎপাদনে উপজেলায় গত জানুয়ারীর শেষ সপ্তাহ থেকে ৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো আবাদ রোপণে। আগামী মার্চ
মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বোরো আবাদ রোপণ করা যাবে । আদমদিঘী কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মিঠু চন্দ্র অধিকারি জানান নির্বিঘে বোরো ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে উপজেলা কৃষি অফিস কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।

জনপ্রিয় সংবাদ

চট্টগ্রামে বিআরটিএর অভিযানে ১৭ মামলা, জরিমানা অর্ধলাখ

বগড়া আদমদীঘিতে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো বীজ রোপণে

আপডেট টাইম : ০৬:৩৭:৫৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

সজীব হাসান,( বগুড়া): শষ্যভান্ডার হিসেবে খ্যাত বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার কৃষকরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো ধান রোপণে। কৃষি প্রধান এই অঞ্চলে শাক- সবজি,সরিষা,আলু চাষ হঔের অর্থকারী ফসল হিসেবে বোরো ধানই কৃষকদের একমাত্র ভরসা। তাই উপজেলার কৃষকরা বর্তমানে বোরো ধান রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মাঠে মাঠে চলছে হাল-চাষ, জমির আইল নির্মাণ, পানি সেচ, চারা রোপণ ইত্যাদি কাজ। কেউবা জমিতে সার ও পাইশ কেইবা জমির আগাছা বাছাই করে এক জয়গায় স্তপ করে রাখছে। এমন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য এখন উপজেলার প্রায় সর্বত্র। এ যেন আদমদীঘি উপজেলার কৃষদের ঈদ আনন্দ। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবারে বোরো ধানের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১২,৪৫২ হেক্টর। ইতিমধ্যে ৮০ ভাগ জমিতে ধানের চারা রোপণ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এবারেও উপজেলায় বোরো আবাদ বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। উপজেলার সান্তাহার মালশন গ্রামের কৃষক হোসেন জানান, বোরো ধান আবাদ করতে দিন-রাত পরিশ্রম করতে হয়। এ ছাড়া বোরো আবাদে খরচও বেশি। বোরো ধান লাগানোর পর থেকে তিন-চার দিন পর পর জমিতে সেচ দিতে হয়। আশা করছি
এ বোরো আবাদে নায্য দাম পাব। তবে এসব নির্ভর করবে আবহাওয়ার উপর। এই আবাদই
আমাদের ভরসা। আদমদীঘি সদর ইউনিয়নের করজবাড়ির কৃষক নূর ইসলাম জানান, ধান আবাদে আমরা তেমন নায্য দাম পাইনা। তবে বাপ-দাদার পেশা, ছাড়তে পারি না। প্রায় কৃষি উপকরণের
দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। জমির পানি, শ্রমিকের মজুরী, কিটনাশক, সার- এসবের পেছনে বিনিয়োগ করার পর যা ধান পাওয়া যায়, তাতে লাভ তেমন থাকে না।
আদমদীঘি উপজেলা কৃষি অফিসার মিঠু চন্দ্র অধিকারী জানান, চলতি বোরো মৌসুমে খাদ্য উৎপাদনে উপজেলায় গত জানুয়ারীর শেষ সপ্তাহ থেকে ৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছে বোরো আবাদ রোপণে। আগামী মার্চ
মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বোরো আবাদ রোপণ করা যাবে । আদমদিঘী কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মিঠু চন্দ্র অধিকারি জানান নির্বিঘে বোরো ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে উপজেলা কৃষি অফিস কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।