পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল
শিরোনাম :
Logo ময়মনসিংহ বিআরটিএ টাকা ছাড়া কাজ করেন না সহকারী পরিচালক এস এম ওয়াজেদ, সেবাগ্রহীতাদের অসন্তোষ Logo বগুড়ায় দুর্বৃত্তের ছোড়া গুলিতে গৃহবধু আহত Logo বাউফলে নির্বাচনী সহিংসতা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাংচুর, ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে জখম।  Logo সান্তাহারে ট্রেনে পৃথক স্থানে কাটা পড়ে দুই যুবকের মৃত্য Logo বগুড় সান্তাহারে এক স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা Logo জন্মগত জটিল রোগে ভুগছেন শিশু কাওসার, অর্থের অভাবে থেমে আছে চিকিৎসা। Logo বিআরটিএ’র পরিদর্শক আরিফুলের অবৈধ সম্পদের পাহার, দুদকের মামলা, এখনো বহাল তবিয়তে Logo বেবিচকের ধনকুবের খ্যাত শত কোটি টাকার মালিক সুব্রত চন্দ্র দে। দুদকে অভিযোগে Logo বিআরটিএ’র পরিদর্শক আরিফুলের অবৈধ সম্পদের পাহার, দুদকের মামলা, এখনো বহাল তবিয়তে Logo এতদিন কি তাহলে বিআরটিএ ঘুমিয়ে ছিল? প্রশ্ন কাদেরের

তুলা চাষে বাম্পার ফলনেও হতাশ চাষিরা।

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক লালমনিরহাট:
বস্ত্র শিল্পের অন্যতম কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয় তুলা কিন্তু ঠচাহিদার তুলনায় তুলার চাষাবাদ অনেক কম থাকায় বস্ত্র তৈরির এই কাঁচামালের আমদানির উপর নির্ভরত করতে হয়। তবে
এবছর লালমনিরহাটে তুলার চাষাবাদ বেড়েছে। এখানকার উৎপাদিত তুলার মান আন্তর্জাতিক মানের। কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে সারসহ তুলা চাষে ব্যবহৃত জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় অন্যান্য আবাদি ফসলের ন্যায় তুলা আবাদেও অনেক খরচ বেড়েছে। তাই গত বছরের তুলনায় মণ প্রতি তুলার দাম প্রায় ১০০ টাকা বাড়লেও খুশি হতে পারেনি লালমনিরহাটের তুলা চাষিরা। গত বছর প্রতি মণ তুলা (আঁশ ও বীজ) বিক্রি হয়েছিল ৩৮০০ টাকা দরে। এ বছর প্রতি মণ তুলার দাম বেড়েছে ১০০ টাকা। এতে উৎপাদিত তুলা বিক্রি করে আশানুরূপ লাভ করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন হতাশা গ্রস্থ চাষিরা।

তুলা উন্নয়ন বোর্ড সূত্র থেকে জানান, এ বছর লালমনিরহাটে ৫৩০ জন কৃষক ১৫৪ হেক্টর জমিতে তুলা চাষ করেছেন। গত বছর ৫০০ কৃষক তুলা চাষ করেছিলেন ১৪২ হেক্টর জমিতে। অন্যদিকে হিসাব মতে গত বছর সারাদেশে ৪৫,১৫০ হেক্টর জমিতে তুলা উৎপাদন হয়েছিল ২,১০,০০ বেল। এবছর তুলা চাষ হয়েছে ৪৬,০০০ হেক্টর জমিতে এবং উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২,২৮,০০০ বেল।

লালমনিরহাটের চর কটন ও আপলাইন কটন জাতের তুলা চাষ হচ্ছে। এসব জাতের তুলা প্রতিবিঘা (৩৩ শতাংশ )জমি থেকে আঁশ ও বীজসহ ১৩ থেকে ১৮ মণ পর্যন্ত উৎপাদন করছেন। এ বছর আঁশ ও বীজসহ প্রতিমণের দাম নির্ধারণ হয়েছে ৩,৯০০ টাকা। চাষিদের উৎপাদিত প্রতিমণ তুলা থেকে আঁশ পাওয়া যায় ১২ কেজি আর বীজ ২৮ কেজি। গত বছর প্রতি মণ তুলা (আঁশ ও বীজ) বিক্রি হয়েছিল ৩, ৮০০ টাকা দরে। এ বছর প্রতি মণ তুলার দাম বেড়েছে ১০০ টাকা। তুলার ভালো ফলনের কারণে এখানকার কৃষকরা আগ্রহী হয়ে উঠছে এবং বাড়ছে তুলাচাষীর সংখ্যা। কিন্তু বীজ, সার, কীটরনাশক ও ডিজেলের দাম বাড়ায় তুলাচাষে খরচও বেড়েছে। প্রতিমণ তুলা ৫ হাজার টাকা দরে বিক্রি করতে পারলে প্রত্যাশিত লাভ হবে বলে দাবি করছেন এ অঞ্চলের তুলা চাষিরা।

তুলা চাষিদের সাথে কথা বলে জানা গেছে , এ বছর প্রতি বিঘা জমিতে তুলা উৎপাদিত হয়েছে প্রায় ১৪থেকে১৬ মণ। এতে খরচ হয়েছে ১৬থেকে২০ হাজার টাকা। গত বছর খরচ হয়েছিল ১১থেকে১৪ হাজার টাকা।

তুলা চাষের জন্য উঁচু জমির প্রয়োজন হয় এবং এতে সময় লাগে আট মাস (মধ্য জুলাই থেকে মধ্য মার্চ)। স্বল্পমেয়াদী জাতের তুলা চাষের সুযোগ পেলে তারা জমিতে অন্য ফসল উৎপাদনের সুযোগ পেতেন।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার চওড়াটারী গ্রামের এক তুলা চাষি জানান, গত বছর থেকে তারা হাইব্রিড জাতের তুলা চাষ করছেন। দুই বছর আগে স্থানীয় জাতের তুলা চাষ করে কম ফলন পেয়েছিলেন। তুলা চাষিরা বলেন আমরা তুলার ফলন পাচ্ছি আশানুরূপ। কিন্তু বাজারদর নিয়ে হতাশ। প্রতি মণ তুলা পাঁচ হাজার টাকা দরে বিক্রি করতে পারলে প্রত্যাশিত লাভ পেতাম।

লালমনিরহাট তুলা উন্নয়ন বোর্ডের কটন ইউনিট অফিসার রেজাউল জানান, দেশে প্রতিবছর তুলার চাহিদা রয়েছে প্রায় ৮৫ লাখ বেল। প্রতি বছর প্রায় ৮৩ লাখ বেল তুলা আমদানি করতে হয় বিদেশ থেকে। এতে খরচ হয় প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা। তিনি বলেন, তুলা চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে। তুলা চাষের জমিতে সাথী ফসল হিসেবে বিভিন্ন শাক-সবজি চাষের চর্চা শুরু হয়েছে। এতে সফলতাও পেয়েছেন কৃষকরা। বর্তমানে তুলাচাষিদের মধ্যে ৯০ শতাংশ কৃষকই হাইব্রিড জাতের তুলা চাষ করছেন এবং ১০ শতাংশ কৃষক স্থানীয় জাতের তুলা চাষ করছেন, ভালো দিক হচ্ছে আমাদের উৎপাদিত তুলা আন্তর্জাতিক মানের তাই আমরা মাঠপর্যায়ে গিয়ে কৃষকদের তুলা চাষের পদ্ধতি সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছি।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

ময়মনসিংহ বিআরটিএ টাকা ছাড়া কাজ করেন না সহকারী পরিচালক এস এম ওয়াজেদ, সেবাগ্রহীতাদের অসন্তোষ

তুলা চাষে বাম্পার ফলনেও হতাশ চাষিরা।

আপডেট টাইম : ০৪:০৬:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক লালমনিরহাট:
বস্ত্র শিল্পের অন্যতম কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয় তুলা কিন্তু ঠচাহিদার তুলনায় তুলার চাষাবাদ অনেক কম থাকায় বস্ত্র তৈরির এই কাঁচামালের আমদানির উপর নির্ভরত করতে হয়। তবে
এবছর লালমনিরহাটে তুলার চাষাবাদ বেড়েছে। এখানকার উৎপাদিত তুলার মান আন্তর্জাতিক মানের। কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে সারসহ তুলা চাষে ব্যবহৃত জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় অন্যান্য আবাদি ফসলের ন্যায় তুলা আবাদেও অনেক খরচ বেড়েছে। তাই গত বছরের তুলনায় মণ প্রতি তুলার দাম প্রায় ১০০ টাকা বাড়লেও খুশি হতে পারেনি লালমনিরহাটের তুলা চাষিরা। গত বছর প্রতি মণ তুলা (আঁশ ও বীজ) বিক্রি হয়েছিল ৩৮০০ টাকা দরে। এ বছর প্রতি মণ তুলার দাম বেড়েছে ১০০ টাকা। এতে উৎপাদিত তুলা বিক্রি করে আশানুরূপ লাভ করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন হতাশা গ্রস্থ চাষিরা।

তুলা উন্নয়ন বোর্ড সূত্র থেকে জানান, এ বছর লালমনিরহাটে ৫৩০ জন কৃষক ১৫৪ হেক্টর জমিতে তুলা চাষ করেছেন। গত বছর ৫০০ কৃষক তুলা চাষ করেছিলেন ১৪২ হেক্টর জমিতে। অন্যদিকে হিসাব মতে গত বছর সারাদেশে ৪৫,১৫০ হেক্টর জমিতে তুলা উৎপাদন হয়েছিল ২,১০,০০ বেল। এবছর তুলা চাষ হয়েছে ৪৬,০০০ হেক্টর জমিতে এবং উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২,২৮,০০০ বেল।

লালমনিরহাটের চর কটন ও আপলাইন কটন জাতের তুলা চাষ হচ্ছে। এসব জাতের তুলা প্রতিবিঘা (৩৩ শতাংশ )জমি থেকে আঁশ ও বীজসহ ১৩ থেকে ১৮ মণ পর্যন্ত উৎপাদন করছেন। এ বছর আঁশ ও বীজসহ প্রতিমণের দাম নির্ধারণ হয়েছে ৩,৯০০ টাকা। চাষিদের উৎপাদিত প্রতিমণ তুলা থেকে আঁশ পাওয়া যায় ১২ কেজি আর বীজ ২৮ কেজি। গত বছর প্রতি মণ তুলা (আঁশ ও বীজ) বিক্রি হয়েছিল ৩, ৮০০ টাকা দরে। এ বছর প্রতি মণ তুলার দাম বেড়েছে ১০০ টাকা। তুলার ভালো ফলনের কারণে এখানকার কৃষকরা আগ্রহী হয়ে উঠছে এবং বাড়ছে তুলাচাষীর সংখ্যা। কিন্তু বীজ, সার, কীটরনাশক ও ডিজেলের দাম বাড়ায় তুলাচাষে খরচও বেড়েছে। প্রতিমণ তুলা ৫ হাজার টাকা দরে বিক্রি করতে পারলে প্রত্যাশিত লাভ হবে বলে দাবি করছেন এ অঞ্চলের তুলা চাষিরা।

তুলা চাষিদের সাথে কথা বলে জানা গেছে , এ বছর প্রতি বিঘা জমিতে তুলা উৎপাদিত হয়েছে প্রায় ১৪থেকে১৬ মণ। এতে খরচ হয়েছে ১৬থেকে২০ হাজার টাকা। গত বছর খরচ হয়েছিল ১১থেকে১৪ হাজার টাকা।

তুলা চাষের জন্য উঁচু জমির প্রয়োজন হয় এবং এতে সময় লাগে আট মাস (মধ্য জুলাই থেকে মধ্য মার্চ)। স্বল্পমেয়াদী জাতের তুলা চাষের সুযোগ পেলে তারা জমিতে অন্য ফসল উৎপাদনের সুযোগ পেতেন।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার চওড়াটারী গ্রামের এক তুলা চাষি জানান, গত বছর থেকে তারা হাইব্রিড জাতের তুলা চাষ করছেন। দুই বছর আগে স্থানীয় জাতের তুলা চাষ করে কম ফলন পেয়েছিলেন। তুলা চাষিরা বলেন আমরা তুলার ফলন পাচ্ছি আশানুরূপ। কিন্তু বাজারদর নিয়ে হতাশ। প্রতি মণ তুলা পাঁচ হাজার টাকা দরে বিক্রি করতে পারলে প্রত্যাশিত লাভ পেতাম।

লালমনিরহাট তুলা উন্নয়ন বোর্ডের কটন ইউনিট অফিসার রেজাউল জানান, দেশে প্রতিবছর তুলার চাহিদা রয়েছে প্রায় ৮৫ লাখ বেল। প্রতি বছর প্রায় ৮৩ লাখ বেল তুলা আমদানি করতে হয় বিদেশ থেকে। এতে খরচ হয় প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা। তিনি বলেন, তুলা চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে। তুলা চাষের জমিতে সাথী ফসল হিসেবে বিভিন্ন শাক-সবজি চাষের চর্চা শুরু হয়েছে। এতে সফলতাও পেয়েছেন কৃষকরা। বর্তমানে তুলাচাষিদের মধ্যে ৯০ শতাংশ কৃষকই হাইব্রিড জাতের তুলা চাষ করছেন এবং ১০ শতাংশ কৃষক স্থানীয় জাতের তুলা চাষ করছেন, ভালো দিক হচ্ছে আমাদের উৎপাদিত তুলা আন্তর্জাতিক মানের তাই আমরা মাঠপর্যায়ে গিয়ে কৃষকদের তুলা চাষের পদ্ধতি সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছি।