শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বন্দুকযুদ্ধ হলে কি পুলিশ বন্দুক ফেলে পালিয়ে আসবে, প্রশ্ন আইজিপির লেখক মুশতাকের মৃত্যু না পরিকল্পিত হত্যা : নিরপেক্ষ বিভাগীয় তদন্তের দাবি পরকীয়ায় আসক্ত স্বামীকে স্ত্রীর কাছে ফিরিয়ে দিলো পুলিশ ‘দালালের কাছে যাবেন না, তাতে প্রতারিত হবেন’: গণশুনানিতে বিআরটিএ চেয়ারম্যান ৩০ পৌরসভায় ভোটের দিন থাকছে না সাধারণ ছুটি যে কারণে সৈয়দ আবুল মকসুদ দুই খণ্ড সেলাই ছাড়া সাদা চাদর পরতেন কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে ‘কমিশন বাণিজ্যের ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে’ আসন্ন কায়েতপারা ইউপি নির্বাচন উপলক্ষে জাহেদ আলীর পক্ষে জনসভা মাসের পর মাস মেয়েকে নির্যাতন, কারাগারে বাবা আজ অমর একুশে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

মাসের পর মাস মেয়েকে নির্যাতন, কারাগারে বাবা

ডেস্ক: লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় নিজের মেয়েকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে বাবাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নে।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকালে মেয়েকে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে স্ত্রী নিজেই স্বামীর বিরুদ্ধে চন্দ্রগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলার পরপরই পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ১০ বছর বয়সী মেয়েকে নানা অজুহাতে মাসের পর মাস যৌন হয়রানি করে আসছিলেন নিজের বাবা। অবশেষে মায়ের নজরে এলে মেয়েকে নানার বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তবুও বাবার লালসার চক্ষু মেয়ের থেকে সরেনি। শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে এসেই আবার মেয়ের গায়ে হাত দেন তিনি। মেয়ের চিৎকার শুনে মা গিয়ে রক্ষা করেন। অবশেষে পরে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে পুলিশ জেলা কারাগারে পাঠিয়েছে বাবা মোহাম্মদ হোসেনকে।

হোসেন দত্তপাড়ার হোসেনপুর গ্রামের মৃত সফি উল্যার ছেলে। তিনি নোয়াখালীতে ভাঙারি ব্যবসা করেন। নোয়াখালীর অনন্তপুর টিভি সেন্টার সংলগ্ন একটি বাসায় স্ত্রী-মেয়েকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন। সেখানেই মেয়েকে যৌন হয়রানি করতে দেখে ফেলেন তার স্ত্রী। পরে নানার (মায়ের বাবার বাড়ি) বাড়ি পাঠিয়ে দিয়ে মেয়েকে রক্ষা করার চেষ্টা করেন অসহায় মা।

নিজ মেয়েকে মাসের পর মাস স্ত্রীর অগোচরে হোসেন বিভিন্ন অজুহাতে যৌন হয়রানি করে আসছিল। প্রায় চার মাস আগে ঘটনাটি আঁচ করতে পেরে মেয়েকে নানার (মায়ের বাবার বাড়ি) বাড়ি পাঠিয়ে দেয় মা। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি হোসেনকে নিয়ে তার স্ত্রী বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায়। তাদের সন্তান আগ থেকেই ওই বাড়িতে ছিল। মেয়েকে একা পেয়ে আবারও হোসেন গায়ে হাত দেয়। চিৎকার শুনে মা গিয়ে মেয়েকে রক্ষা করে। ঘটনাটি মেয়ের মা তার আত্মীয়-স্বজনদের অবহিত করলে সবাই থানায় অভিযোগের পরামর্শ দেয়। থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পরপরই হোসেনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

মামলার বাদী বলেন, আমার স্বামী মাসের পর মাস মেয়েকে যৌন হয়রানি করত। ঘটনাটি আঁচ করতে পেরে মেয়েকে আমি আমার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেই। কিন্তু তাতেও রক্ষা হলো না। এজন্য বাধ্য হয়ে মামলা করেছি।

এ ব্যাপারে চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একে ফজলুল হক বলেন, মেয়েকে যৌন হয়রানির ঘটনায় অভিযুক্ত বাবাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিকেলে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বাংলার খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com