শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০১:০৫ অপরাহ্ন

বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা বাড়াতে অর্থের অভাব হবে না: প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গবেষণা বাড়াতে প্রয়োজনীয় অর্থের অভাব হবে না।

মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ কথা বলেন তিনি। সভায় চার প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

গণভবন থেকে সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে শেরেবাংলা নগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী-সচিবরা উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে প্রকল্পের সার্বিক বিষয় সাংবাদিকদের সামনে প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান।

প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যেন বাজার না হয়ে যায়। একটা বিশ্ববদ্যিালয়ে কতজন শিক্ষার্থী ভর্তি হবে তার একটা নির্দিষ্ট সীমারেখা নির্ধারণ করে দেওয়া উচিত। যাতে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় ইচ্ছামতো অনির্দিষ্ট সংখ্যায় ছাত্র ভর্তি অব্যাহত না রাখে।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাককানইবি) ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ৩৪৯ কোটি টাকা ব্যয়ে অনুমোদন দেয়া হয়। প্রকল্পটির আওতায় একাডেমিক ভবন, ডরমিটরি ও ছাত্র/ছাত্রী হল নির্মাণ কাজ চলমান। এছাড়া ভূমি অধিগ্রহণ, দ্বিতীয় প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ, পাঁচটি ইনস্টিউট, আর্ন্তজাতিক ছাত্র/ছাত্রীদের শ্রেণিকক্ষ ও আইটি স্পেস ভবন নির্মাণ করা হবে। এছাড়া অতিথি ভবন, একাডেমিক ভবন, স্কুল ও কলেজ ভবন, একটি ছাত্র ও একটি ছাত্রী হল নির্মাণ, শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের জন্য ইউটিলিটি ভবন নির্মাণ করা হবে এই প্রকল্পের আওতায়। প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী স্পষ্টভাবে বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যেন বাজার না হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে যত্রতত্র অবকাঠামো নির্মাণ করা যাবে না। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গবেষণা বাড়াতে হবে। এর জন্য যত টাকা প্রয়োজন সরকার দেবে। গবেষণার পাশাপাশি প্রকাশনা আরো বাড়াতে হবে।

প্রকল্পের আওতায় শিক্ষক-কর্মকর্তাদের জন্য আবাসিক ভবন, ১১-২০তম গ্রেডের কর্মচারীদের জন্য টাওয়ার নির্মাণ, পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের আবাসিক ভবন, মাল্টিপারপাস হল কাম টিএসসি কাম জিমনেসিয়াম ভবন নির্মাণ, চিকিৎসা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ, ইমাম ও মুয়াজ্জিনদের জন্য আবাসিক ভবনসহ মসজিদ নির্মাণ, বিদ্যমান ভবনের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ, ক্যাম্পাসের চারদিকে সবুজ বেষ্টনী নির্মাণ এবং বিভিন্ন ল্যাব যন্ত্রপাতি, আসবাবপত্র ও ল্যাপটপসহ আনুষঙ্গিক ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রপাতি কেনা হবে। প্রকল্পটি আরো আগে অনুমোদন দেওয়ার দরকার ছিল বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

‘হাতে কলমে কারিগরি প্রশিক্ষণে নারীদের গুরুত্ব দিয়ে বিটাকের কার্যক্রম সম্প্রসারণ করে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দারিদ্র্য বিমোচন’ প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১২৩ কোটি ১৮ লাখ টাকা। এখানে মেয়েদের বেশি করে সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। চট্টগ্রাম জেলার উপকূলীয় এলাকার পোল্ডার পুনর্বাসন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২৫৬ কোটি টাকা।

এই প্রকল্প প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আমাদের নদীমাতৃক দেশ। সুতরাং, নির্মাণকাজে আরো সতর্ক হতে হবে। নদীর পাড়ে কোনো নির্মাণকাজ শুরু করলে শীত মৌসুমে শেষ করতে হবে। যেটুকু শীত মৌসুমে সম্পন্ন করা যাবে সেটুকু কাজ হাতে নিয়ে সম্পন্ন করতে হবে। কারণ বর্ষায় নির্মাণ কাজের ক্ষতি হয়ে যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বাংলার খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com